আত্মহ’ত্যার আগে প্রেমিকের নামে চিরকুটে যা লিখে গেলেন তরুণী

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলায় হাদিসা আক্তার পপি (১৭) নামে এক কলেজছাত্রী আত্মহ’ত্যা করেছেন। তবে মৃ’ত্যুর আগে একটি চিরকুট লিখে গেছেন তিনি।

সেখানে উঠে এসেছে, এক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর প্র’তারণার শিকার হয়ে আ’ত্মহ’ত্যা করতে বাধ্য হন ওই তরুণী। তাদের সম্পর্কের বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়ভাবে সালিস বসে টাকার পরিমাপে মীমাংসার চেষ্টা করে।

এতে ক্ষোভে রোববার (৭ নভেম্বর) সকাল ১০টার দিকে নিজ বাড়ির টয়লেটে ফাঁস দিয়ে আ’ত্মহ’ত্যা করেন ওই তরুণী। নিহত তরুণীর নাম হাদিসা আক্তার পপি (১৭)।

তিনি ময়মনসিংহ নগরীর মুমিনুন্নিছা সরকারি মহিলা কলেজের উচ্চমাধ্যমিক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী। তার বাড়ি ঈশ্বরগঞ্জ উপজলার উচাখিলা ইউনিয়নর মরিচারচর নামাপাড়া গ্রামে।

ওই গ্রামের তহুর উদ্দিনের তিন মেয়ে ও এক ছেলের মধ্যে তৃতীয়। তার সঙ্গে প্রতিবেশী মোনায়েম মিয়ার প্রেমের সম্পর্ক গড় ওঠে। মোনায়েম একই গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আমীর আলীর ছেলে।

মৃ’ত্যুর আগে একটি চিরকুট লিখে যায় পপি। পুলিশের মাধ্যমে হাতে পাওয়া চিঠিতে লেখা ছিল, ‘মোনায়েম তুমিই ভালো থেক। সরল মনে তোমাকে ভালোবেসেছিলাম। কিন্তু তুমি আমার ভালোবাসাটা বুঝলে না।

আমি আমার এই কলঙ্কিত মুখ নিয়ে আর বেঁচে থাকতে চাই না। তোমাকে সরল মনে ভালোবেসে কী অপরাধ করেছিলাম জানি না। তুমি ভালো থেক। আমি তো তোমার কাছে আগে যাইনি, তুমিই তো আমাকে আগেই ভালোবেসেছো। আমি বুঝতে পারিনি তোমার অভিনয়। সুখে থেক। সারাটা জীবন অনেক ভালো থেক, এটাই চাই।’ চিঠিতে আরও লেখা হয়, ‘আমি বুঝতে পারিনি, তুমি আমার সঙ্গে কেন এমন করলে। কি ক্ষতি করেছিলাম তোমার এমন, জানি না। আমি জীবন দিয়ে তোমাকে ভালোবেসেছিলাম। দেহ দিয়ে নয়। তুমি শুধু আমার দেহটাই বেছে নিয়েছিলে। আমি তো তোমায় সরল মনে ভালোবেসেছিলাম।’ ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি মো. আবদুল কাদের মিয়া আরটিভি নিউজকে বলেন, প্রেমের সম্পর্কের পর বিয়ে করতে রাজী না হওয়ায় ওই তরুণী আত্মহত্যা করেছে। খবর পেয়ে মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *