এইমাত্র পাওয়াঃ ফের এসএসসি-এইচএসসিতে ‘অটোপাস’হতে পারে (মাউশি)।

দীর্ঘ দেড় বছর বন্ধের পর গত ১২ সেপ্টেম্বর প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হয়েছে। এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা আয়োজনের লক্ষ্যে শিক্ষার্থীদের নিয়মিত পাঠদান চলছে।

করোনা সংক্রমণ না বাড়লে আগামী নভেম্বরে এসএসসি এবং ডিসেম্বরে এইচএসসি ও সমমমান পরীক্ষা আয়োজন করা হবে। তবে সংক্রমণ বাড়লে আবারও অটোপাসের দিকে যাবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের তিনটি নৈর্বচনিক বিষয়ের উপর পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। তবে কোনো কারণে যদি পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব না

হয় তাহলে সব বিষয়ের ফল দেওয়া হবে ‘সাবজেক্ট ম্যাপিং’-এর মাধ্যমে। আর পরীক্ষা নেওয়া গেলে নৈর্বাচনিক বাদে বাকি সব বিষয়ে গ্রেড দেওয়া হবে সাবজেক্ট ম্যাপিংয়ে করে।

সূত্র জানায়, পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে সেটি ধরেই শিক্ষা বোর্ডগুলোকে প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে। তবে করোনা যেহেতু লাগামহীন তাই বিকল্পও ভেবে রাখা হচ্ছে। এজন্য চলতি বছরের এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্টের নম্বর অন্তর্ভুক্তির নির্দেশনা দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)।

জানতে চাইলে মাউশি মহাপরিচালক প্রফেসর ড. সৈয়দ গোলাম ফারুক জানান, দেশে চলমান করোনা সংক্রমণ বেড়ে গেলে চলতি বছরের এসএসসি এবং এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষায় আবারও অ্যাসাইনমেন্টের মাধ্যমে মূল্যায়ন করা হবে। সেজন্যই শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্টের নম্বর অন্তর্ভুক্তির নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। তবে আমরা পরীক্ষা আয়োজনের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করে রাখছি। যেন পরিস্থিতি অনুকূলে থাকলে দ্রুত পরীক্ষা নিয়ে নেওয়া যায়।

প্রসঙ্গত, গত বছরের মার্চ দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্তের পর ১৮ মার্চ থেকে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এরপর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি দফায় দফায় বাড়ানো হয়। করোনার কারণে স্কুল-কলেজ খুলতে না পারায় ২০২০ সালে জেএসসি, এসএসসি এবং এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষায় অটোপাস দেওয়া হয়।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *