দেশে ২৪ ঘন্টায় করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত বাড়ল…

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৪৫ জনের মৃ’ত্যু হয়েছে। এ নিয়ে করোনায় মারা গেলেন ২২ হাজার ৮৯৭ জন।সোমবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

একই সময়ে দেশে করোনায় নতুন শনাক্ত হয়েছেন ১১ হাজার ৪৬৩ জন। ফলে করোনায় মোট শনাক্তের সংখ্যা হলো ১৩ লাখ ৬৫ হাজার ১৫৮ জনে।বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়,

গত ২৪ ঘণ্টায় মোট ৪২ হাজার ২০৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার দাঁড়িয়েছে ২৪ দশমিক ২৮ শতাংশ।২৪ ঘন্টায় সুস্থ ১৪ হাজার ৪১২ জন। এখন পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১২ লাখ ১৯ হাজার ৮৫৯ জন।

এর আগে দেশে করোনায় একদিনে সর্বোচ্চ ২৬৪ জনের মৃত্যু হয় ৫ আগস্ট । শনিবার করোনায় মৃতের সংখ্যা ছিল ২৬১ জন। যা ২৪ ঘণ্টায় দেশে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ মৃত্যু।এছাড়াও ১ আগস্ট ২৩১, ২ আগস্ট ২৪৬, ৩ আগস্ট ২৩৫, ৪ আগস্ট ২৪১ জনের মৃত্যু হয়।

আরোও পড়ুন:সর্বাত্মক লকডাউন শেষ হচ্ছে ১১ জুলাই। বুধবার থেকে অফিস-আদালত, ব্যাংক, দোকানপাট, শপিংমলসহ সব স্বাভাবিক নিয়মে চলবে। কিন্তু গণপরিবহণ অর্ধেক চালানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

পরিবহণ মালিক সমিতি অবশ্য সব যানবাহন চালু করার দাবি জানিয়েছে। সাধারণ মানুষের মনেও প্রশ্ন সবকিছু স্বাভাবিক নিয়মে চললেও বাস কেন অর্ধেক চলবে।এমন প্রশ্নে জবাব দিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

করোনাভাইরাসের বিস্তার নিয়ন্ত্রণে আন্তঃজেলা বাস চলাচল কমাতেই গণপরিবহণের ক্ষেত্রে অর্ধেক গাড়ি রাস্তায় নামানোর শর্ত দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।
অর্ধেক গাড়ি কীভাবে চলাচল করবে তা স্থানীয় প্রশাসন ও পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা আলোচনা করে ঠিক করে নেবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এর কারণ ব্যাখ্যা করেন।তিনি বলেন, আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী

থেকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে অন্তত কিছুদিন আপনারা এটা করে দেন। জেলা পর্যায়ে ডিসি, এসপি, পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের সঙ্গে বসে আমরা নিজেরা ঠিক করে দেব যতগুলো বাস আছে তার অর্ধেক আজকে চলবে, পরেরদিন বাকি অর্ধেক চলবে।

‘এটা মূলত আন্তঃজেলা বাসের জন্য বলেছে। বাইরে থেকে কম সংখ্যক বাস যাতে আসে। সংশ্লিষ্ট জেলা প্রসাশক,

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, শ্রমিক ইউনিয়নের মালিক-শ্রমিক যারা আছেন তারা বসে সিদ্ধান্ত নেবেন। তারা একটা পদ্ধতি বের করবে। বেইজিংয়ে আমি দেখেছি এমনটা।’

প্রসঙ্গত, করোনাভাইরাসের বিস্তার নিয়ন্ত্রণে ঈদের পর ২৩ জুলাই থেকে চলা সর্বাত্মক লকডাউন বুধবার থেকে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তুলে নেওয়া হচ্ছে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ রোববার এ বিষয়ে যে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে, তাতে ১১ আগস্ট থেকে গণপরিবহণের ক্ষেত্রে প্রত্যেক এলাকার প্রতিদিন মোট যানবাহনের অর্ধেক গাড়ি রাস্তায় নামানোর শর্ত দেওয়া হয়েছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *