বাসর রাতে কিভাবে বুঝবেন বউয়ের কাছে আপনি প্রথম পুরুষ কি না

এই উল্টা শুনার জন্য জীবন আমা’র সাদা-কালো টিভি হয়ে গেছে। ফু’লস’জ্জা’র রাতে যখন ঘরে প্রবেশ করলাম, দেখতে পেলাম সে লম্বা ইয়া বড় গোমটা দিয়ে বসে আছে।

আমি তার পাশে গিয়ে গোমটা উল্টিয়ে চেহারা দেখে বললাম, “বাঃ তুমি কত নাইচ!” কিন্তু পরক্ষণে তরী অ’ভিমানী হয়ে বলল ,” ছিঃ এসব কি কথা! শুরুতেই আপনি বউয়ের সাইচ জিজ্ঞাসা করছেন! হু! আপনি কেমন পুরুষ! এমন হলে কিন্তু আমি বাসর রাত

থেকে উঠে বাইরে চলে যাব’ো, এই কিন্তু বলে দিলাম।” আমি হালকা রাগান্বিতভাবে বললাম, ” আরে! আমি বলেছি নাইচ! তরী এবার আমাকে অবাক করে দিয়ে বলল,” আমা’র সাইচ হলো ৩৬,২৮, ৩৪।

এবার, খুশিতো?” তার কথা শুনে আমি তব্দা খেয়ে রইলাম। এই মেয়ে বলে কি! আমি বললাম নাইচ, সে বলে সাইচ! হৃদপিণ্ড অলরে’ডি কাঁপতে লাগল। পাশের রুম থেকে ভাবীরা হেসে উঠল হা হা হা করে। ভাবীরা সবাই দেয়ালে

কান পেতে বাসর রাতের আমা’দের কথা শুনছেন। যাতে সকাল হলে আমাকে নিয়ে মজা করতে পারেন। তাই তাদের হাসির আওয়াজে আমি ল’জ্জা পেয়ে কথা আরো আস্তে বলার সি’দ্ধান্ত নিলাম।

এদিকে তরীর নাইচকে সাইচ বলার জন্য ভাবাচ্ছে আমাকে। মনকে বুঝালাম হয়ত দুষ্টুমি করছে সে। বাসর রাতে অমন দুষ্টুমি বউরা একটু-আধটু করেই। আমি আবার মুচকি হেসে আগামী জীবনের নির্দেশনা দিতে শান্তভাবে বললাম,”

আমি সবসময় তোমা’র সাথে আছি৷ আমা’র মন যদি খারাপও থাকে, নিস্তেজ থাকে, তোমা’র মন ভাঙতে কখনই দিবো না আমি।” তরী অ’ভিমান স্বরে বলল,” ওমা এটা কেমন কথা!

পাগল হয়েছেন না-কি?” আমি না বুঝে বললাম,” মানে?” তরী বলল,” আপনার ধন যদি খারাপ থাকে, নিস্তেজ থাকে, আমা’র ধন ভাঙতে দিবেন না এসব কি বলছেন! ম’দ-তদ খেয়েছেন না-কি? নাকি গাঞ্জাও খেয়ে বাসর করতে এসেছেন? আপনার সাথে কোনো কথা নাই!
next…….

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *