মাংস বেশি খাওয়ায় মারামারি, বিচ্ছেদ হওয়া তরুণ-তরুণীর ফের বিয়ে

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বদরগঞ্জ গ্রামের দশমিপাড়ায় বিয়ে বাড়িতে মাংস বেশি খাওয়াকে কেন্দ্র করে বরপক্ষ ও কনেপক্ষের মধ্যে মা’রামা’রির ঘটনা ঘটে।

এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে সেদিন রাতে উভয়পক্ষই আলোচনায় বসে। সেখানে কোনো সমাধান না হওয়ায় বিয়ে বিচ্ছেদ হয় দুই তরুণ-তরুণীর। এরপর বিয়ে বিচ্ছেদের ২৪ ঘণ্টার মাথায় আবারও লুকিয়ে বিয়ে করেছেন সেই তরুণ-তরুণী।

ছেলের বাড়ি ঝিনাইদহ সদর উপজেলার সোনারদাড়ি গ্রামে সোমবার রাতে বিয়ে করেন তারা। বর্তমানে সেখানেই রয়েছেন ওই দম্পতি। বর সবুজ আলী বলেন, ‘রোববার বিয়ে বাড়িতে তুচ্ছ বি’ষয়কে কেন্দ্র করে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন আমা’র ও কনে সুমি আক্তারের পরিবারের লোকজন।

এক পর্যায়ে আমা’র পক্ষের তিনজনকে মা’রধর করা হয়। পরে উভয় পক্ষ বসে বি’ষয়টি সমাধানের চে’ষ্টা করে। কিন্তু সুরাহা না হওয়ায় বিয়ে বিচ্ছেদ হয়। রাতে সুমি আমাকে ফোন করেন। এক পর্যায়ে আমর’া আমা’দের ভুল বুঝতে পারি। সোমবার সকালে সুমি ঝিনাইদহ চলে আসলে রাতে আমর’া বিয়ে করি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আসলে ২ বছর আগে আমা’দের বিয়ে হয়। তারপর থেকে সুমির সঙ্গে আমা’র সম্পর্ক আরও গভীর হয়। উভয় পরিবারের ভুল বোঝাবুঝির কারণে তো আমর’া আলাদা ‘হতে পারি না। সুমি আমা’র সঙ্গে অনেক ভালো আছে।’

বিয়ে বিচ্ছেদের কারণ জানতে চাইলে কনের বাবা নজরুল ইসলাম বলেন, ‘আসলে বিয়ের দিন বর পক্ষ খুব খারাপ আচরণ করে আমা’দের সঙ্গে। বিয়েতে দেয়া গায়ে হলুদের উপহার তারা ফেরত নিয়ে আসেন।

এ ছাড়া খাবার নিয়েও প্রশ্ন তোলে বর পক্ষের লোকজন। একপর্যায়ে আমা’দের সঙ্গে তাদের গণ্ডগল হয়।’ তিনি আরও বলেন, ‘ঘটনার পর রাতেই উভয় পক্ষ বসে। কোনো সমাধান না হওয়ায় বিয়ে বিচ্ছেদ হয়। পরে আমা’র মেয়ে আবারও সবুজের কাছে চলে যায়।’ এ বি’ষয়ে সবুজ আলীর ছোট মামা ফারুক হোসেন বলেন, ‘গায়ে হলুদের উপহার ফেরত দেয়াকে কেন্দ্র করে মূলত বাকবিতণ্ডা হয় কনে পক্ষের সঙ্গে। পরে তারা আমা’দের মা’রধর করে। ঘটনার রাতেই বিয়ে বিচ্ছেদ হয়।’ তিনি জানান, সবুজ বাবা মায়ের একমাত্র ছেলে। বাবা মা’রা যাওয়ার পর ৫ বছর আগে ভাগ্যের চাকা ঘোরাতে সৌদি আরবে যায় সবুজ। সেখানে থাকা অবস্থায় মোবাইল ফোনে বিয়ে হয় তাদের।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *