‘সঠিক চিত্র’ তুলে ধরেছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদন: হাছান

জ’ঙ্গিবাদ ও স’ন্ত্রাসবাদ দমনে র‍্যা’ব-পুলিশসহ অন্যান্য শাখার সফলতার প্রশংসা করে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদনকে ‘সঠিক মূল্যায়ন’ বলে স্বাগত জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

শনিবার সন্ধ্যায় স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে বাংলাদেশ বেতার আয়োজিত আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

র‌্যা’ব এবং এর সাবেক ও বর্তমান সাত কর্মকর্তার বি’রুদ্ধে নি’ষেধাজ্ঞা নিয়ে ঢাকার অ’সন্তোষের মধ্যে বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের প্রতিবেদনে বাংলাদেশে জ’ঙ্গিবাদী স’ন্ত্রাসের ঘটনা কমে আসার কথা বলা হয়।

প্রতিবেদনে র‌্যা’পিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যা’ব) ও কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট (সিটিটিসিইউ) এর কার্যক্রমসহ স’ন্ত্রাসবাদ নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশের পদক্ষেপ তুলে ধরা হয়েছে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, “মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের এ প্রতিবেদনকে স্বাগত জানাই। প্রকৃতপক্ষে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর সঠিক চিত্রটিই তুলে ধরেছে তাদের এ প্রতিবেদনে।

“কারণ বাংলাদেশ র‍্যা’ব, পুলিশসহ পুলিশের বিভিন্ন শাখার সাহসী ও দুঃসাহসিক ভূমিকা এবং তৎপরতার কারণেই দেশের স’ন্ত্রাসবাদ ও জ’ঙ্গিবাদের মতো ঘটনা কমে গেছে।”

২০২০ সালের ‘কান্ট্রি রিপোর্টস অন টেরোরিজম’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বাংলাদেশে ওই বছর তিনটি স’ন্ত্রাসের ঘটনা ঘটলেও কোনো প্রাণক্ষয় হয়নি বলে জানানো হয়। জ’ঙ্গিবাদ ও স’ন্ত্রাসবাদ দমনে অনেক উন্নত দেশের তুলনায় বাংলাদেশ ‘বেশি সফল’ বলেও সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

“মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের প্রতিবেদনেই তা প্রতীয়মান। যেখানে তারা উল্লেখ করেছে ২০২০ সালে বাংলাদেশে মাত্র তিনটি স’ন্ত্রাসবাদের ঘটনা ঘটেছে, যাতে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

“মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আমাদের বন্ধুপ্রতীম রাষ্ট্র। দেশে স’ন্ত্রাসবাদ ও জ’ঙ্গিবাদ দমনে আমাদের সঙ্গে তাদের (যুক্তরাষ্ট্র) টেকনিক্যাল সহযোগিতা রয়েছে, যা অদূর ভবিষ্যতে আরও জোরদার হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করছি।”

গত ১১ ডিসেম্বর ‘গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের’ অভিযোগে র‍্যা’বের সাবেক প্রধান, বর্তমান পুলিশ মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদসহ সাত কর্মকর্তার ওপর যুক্তরাষ্ট্রের অর্থ ও পররাষ্ট্র দপ্তর নি’ষেধাজ্ঞা দেয়।

এ খবরে অ’সন্তোষ প্রকাশ করে ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতকে তলব করা হয়। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেনের সঙ্গে ফোনালাপেও প্রসঙ্গটি তোলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

সমস্যা সমাধানে আলোচনায় ‘গুরুত্ব দিয়ে’ বাংলাদেশের বিষয়ে কোনো সি’দ্ধান্ত নিতে ‘আগে জানানোর’ জন্য ফোনালাপে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে আহ্বান জানান মোমেন। পরবর্তীতে বাংলাদেশ নিয়ে ইতিবাচক তথ্য প্রকাশ করে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের প্রতিবেদনে জ’ঙ্গিদের বিষয়ে বাংলাদেশের ‘শূন্য স’হিষ্ণুতার’ নীতি গ্রহণ করার কথা উল্লেখ করা হয়।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *