৫ ব্যাংক ও ৩ ব্যক্তির ওপর যুক্তরাজ্যের নিষেধাজ্ঞা


আন্তর্জাতিক: ইউক্রেন ইস্যুতে রাশিয়ার পাঁচটি ব্যাংক ও তিন ব্যক্তির ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাজ্য।

মঙ্গলবার ব্রিটিশ পার্লামেন্টে এই নিষেধাজ্ঞা জারি করেন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। এদিকে রাশিয়া থেকে নর্ড স্ট্রিম টু গ্যাস পাইপলাইন

প্রকল্প চালুর অনুমোদন স্থগিত করেছে জার্মানি। নিষেধাজ্ঞা দেয়া ব্যাংকগুলো হলো রোসিয়া, আইএস ব্যাংক, জেনারেল ব্যাংক, প্রোমসভায়াজ ব্যাংক এবং ব্ল্যাক সি ব্যাংক। এগুলো রাশিয়ার গুরুত্বপূর্ণ ব্যাংক।

সেই সঙ্গে রাশিয়ার তিনজন ব্যক্তির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। তারা হলেন গেনেডি তিমচেনঙ্কো, বরিস রোটেনবার্গ এবং ইগোর রোটেনবার্গ। যুক্তরাজ্যে থাকা তাদের সকল সম্পদ জব্দ অবস্থায় থাকবে। তারা যুক্তরাজ্যে যাতায়াত করতে পারবেন না।

যুক্তরাজ্যের কোন নাগরিক তাদের সঙ্গে ব্যবসাবাণিজ্য করতে বা সম্পর্ক রাখতে পারবেন না। যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, পূর্ব ইউক্রেনে বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত দুইটি অঞ্চলের স্বাধীনতায় স্বীকৃতি দিয়ে

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন স্পষ্টভাবে মিনস্ক চুক্তি লঙ্ঘন করেছেন। বিচ্ছিনতাবাদী অঞ্চলের স্বীকৃতি দিয়ে ভ্লাদিমির পুতিন সম্পূর্ণ ইউক্রেনে হামলা করার প্রেক্ষাপট তৈরি করছেন বলে ব্রিটিশ পার্লামেন্টে বলেছেন মি. জনসন।

এছাড়াও পূর্ব ইউক্রেনে বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত দুইটি অঞ্চলকে রাশিয়া স্বাধীন রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দেয়ায় যুক্তরাজ্যের মতো একাধিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রস্তাব বিবেচনা করছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। বিশেষ ব্যক্তির বিরুদ্ধে বা বিশেষ লক্ষ্যে এসব নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রস্তাব করা হয়েছে।

যদি ইউক্রেনে রাশিয়া তার সামরিক কর্মকাণ্ড আরো বৃদ্ধি করে, তাহলে নিষেধাজ্ঞা আরও জোরদার করা হবে বলে বলা হচ্ছে। এদিকে রাশিয়া থেকে নর্ড স্ট্রিম টু গ্যাস পাইপলাইন প্রকল্প চালুর অনুমোদন স্থগিত করে জার্মানি। রাশিয়া থেকে জার্মানিতে

গ্যাস রপ্তানির লক্ষ্যে বাল্টিক সাগরের নিচ দিয়ে ১,২২৫ কিলোমিটার লম্বা পাইপ লাইন তৈরি করেছে রাশিয়া। এর ফলে রাশিয়া থেকে জার্মানিতে বর্তমানের তুলনায় দ্বিগুণ গ্যাস রপ্তানি করা সম্ভব হবে। ইউরোপে রাশিয়ার অর্থনৈতিক ও সামরিক প্রভাবকে ঘিরে যে রাজনীতি চলছে তাতে এই নর্ড স্ট্রিম গ্যাস পাইপলাইনকে দাবার ঘুঁটি হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে।

এদিকে রাশিয়ার সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করতে ইউক্রেনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুরোধ বিবেচনা করছেন প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। রাশিয়ার পদক্ষেপের নিন্দা জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।বিদ্রোহী অঞ্চলগুলোতে নতুন বিনিয়োগ, বাণিজ্য ও অর্থায়ন সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ওয়াশিংটন। এর আগে তীব্র উত্তেজনার মধ্যেই ইউক্রেনের দুটি অঞ্চল দোনেৎস্ক ও লুহানস্ককে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে রাশিয়া। গতকাল সোমবার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে দেয়া এক ভাষণে ওই অঞ্চলে শান্তি বজায় রাখতে সেনা মোতায়েনের নির্দেশ দেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। এদিকে পুতিনের এই বক্তব্যকে কাণ্ডজ্ঞানহীন বলে মন্তব্য করেছেন জাতিসংঘে নিয়োজিত মার্কিন রাষ্ট্রদূত লিন্ডা থমাস গ্রিনফিল্ড।


Leave a Reply

Your email address will not be published.