ইউক্রেনের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে একটি ভিডিওবার্তা পাঠালেন প্রবাসী বাংলাদেশি


আন্তর্জাতিক: গত বছরের ডিসেম্বর থেকেই রাশিয়া ও ইউক্রেন নিয়ে উত্তেজনা পরিস্থিতি চলছে। দুই মাসে যুদ্ধ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয় দুই দেশের মধ্যে।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ইউক্রেনের কয়েকটি অঞ্চলে হামলা চালাচ্ছে রাশিয়া। ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভেও হামলা চালিয়েছে রাশিয়া— এমন দাবি করা হচ্ছে।

এদিকে বৃহস্পতিবার রাশিয়ার বেশ কয়েকটি যুদ্ধবিমান এবং হেলিকপ্টার ভূপাতিত করার দাবি করেছে ইউক্রেন। যুদ্ধের এই ডামাডোলে আর সবার মতো উৎকণ্ঠায় দিন পার করছেন ইউক্রেনে প্রবাসী বাংলাদেশিরা।

ইউক্রেনের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে একটি ভিডিওবার্তা পাঠিয়েছেন সেখানকার খারকভ শহরে বসবাসরত এক বাংলাদেশি। সেই ভিডিওটি হাতে এসেছে।

ভিডিওবার্তায় ওই প্রবাসী বাংলাদেশি সেখানে পূর্ব ইউক্রেনে বসবাসরত সব বাংলাদেশিকে পশ্চিম ইউক্রেনে দ্রুত সরে যেতে অনুরোধ করেছেন।

তিনি বলেন, ‘এখন ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২২ সাল। আমি ইউক্রেনের খারকভ শহর থেকে বলছি। ইউক্রেন ও রাশিয়ার মধ্যে যে সংকট চলছিল তা এখন আরও সিরিয়াস অবস্থায় দাঁড়িয়েছে।

আজ ভোর ৫টা থেকে ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চল থেকে বিভিন্ন জায়গায় যুদ্ধ শুরু হয়ে গেছে। আমার বিনীত অনুরোধ খারকভ এলাকায় সেসব বাসিন্দা রয়েছেন, তারা সাবধানে থাকবেন, শিক্ষার্থীরা নিরাপদ স্থানে থাকবেন। সুযোগ পেলে পূর্ব ইউক্রেন থেকে পশ্চিম ইউক্রেনে চলে যাবেন। গতকাল (মঙ্গলবার) ইউক্রেনের সময় রাত ১১টায় বাংলাদেশ অ্যাম্বাসির সঙ্গে একটা মিটিং হয়েছে।

বাংলাদেশ অ্যাম্বাসি থেকে বলা হয়েছে— সবাই যেন সেফ জোনে চলে যায়। কেউ যেন দেরি না করে। আপনারা যারা খারকভ শহরে আছেন, ওডেসা ও সুমিতে যেসব বাঙালি আছেন তারা যেন দ্রুত পশ্চিম ইউক্রেনে চলে যায়। আমাদের জন্য দোয়া করবেন, আমরা সবাই যেন নিরাপদে ও সুস্থ্য থাকি সেই কামনা করবেন। আল্লাহ হাফেজ।’

তিনি ছাড়াও ইউক্রেনের বর্তমান পরিস্থিতিতে বাংলাদেশিদের অবস্থা নিয়ে তথ্য দিয়ে দেশটির রাজধানী কিয়েভের বাসিন্দা প্রবাসী বাংলদেশি মাহবুব আলম।

মঙ্গলবার তিনি জানিয়েছেন, তার মতো দেড় হাজার বাংলাদেশি ইউক্রেনে উৎকণ্ঠা, অনিশ্চয়তায় দিনরাত পার করছেন। ঘুম নেই তাদের চোখেমুখে। রাশিয়ার মতিগতি বোঝার চেষ্টায় আছেন তারা। অনেকেই নাকি ব্যবসা, পড়াশোনা ছেড়ে দেশে ফেরার কথা ভাবছেন।

এদিকে যুদ্ধ বাধার শঙ্কায় ইতোমধ্যে বিভিন্ন দেশ ইউক্রেন থেকে তাদের নাগরিকদের সরিয়ে নেওয়া শুরু করেছে। বাংলাদেশের প্রতিবেশী দেশ ভারতও সেখানে বিমান পাঠিয়েছে তাদের নাগরিকদের ফিরিয়ে আনতে।

এ বিষয়ে পোল্যান্ডে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত সুলতানা লায়লা হোসেন বিবিসি বাংলাকে বলেন, ইউক্রেনে বসবাসরত প্রায় পাঁচশ বাংলাদেশি তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন এবং তারা চলে যেতে চাইলে তাদের কী ধরনের সহায়তা দেওয়া যাবে, তা নিয়ে তারা ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন।


Leave a Reply

Your email address will not be published.