ইসির সংলাপে গিয়ে যা বললেন জাফরুল্লাহ-ফরাসউদ্দিনরা

ইসির সংলাপে গিয়ে যা বললেন জাফরুল্লাহ-ফরাসউদ্দিনরা

রাজনীতি: আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে কাজী হাবিবুল আউয়ালের

নির্বাচন কমিশন রেওয়াজ অনুযায়ী সবার মতামত নিতে সংলাপ করছে। দায়িত্ব নেওয়ার ১৫ দিনের মাথায় গত ১৩ মার্চ প্রথম দফায় দেশের শিক্ষাবিদদের সঙ্গে বসে ইসি।

সেই ধারাবাহিকতায় আজ (মঙ্গলবার) বিশিষ্টজনদের সঙ্গে সংলাপ করেছে সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটি। আজকের সংলাপে যে বিশিষ্টজনরা অংশ নিয়েছেন,

তাদের মধ্যে রয়েছেন- গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, সিপিডির বিশেষ ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য, টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান,

সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব আলী ইমাম মজুমদার, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ফরাসউদ্দিন আহমেদ, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সাবেক চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

এই বিশিষ্টজনদের কেউ কেউ সংলাপে তাদের বক্তব্য তুলে ধরে ইসিকে বেশকিছু পরামর্শ ও প্রস্তাব দিয়েছেন। সেগুলো হলো- জাতীয় নির্বাচনে সবার ঐকমত্য ছাড়া ইভিএম ব্যবহার না করা, ভোটারদের বাধাহীনভাবে ভোটদানের অধিকার নিশ্চিত করা, ভোটের আগে-পরে ভোটারদের বিশেষ করে নারী ও সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, নির্বাচনকালীন প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নির্বাচন কমিশনের নিয়ন্ত্রণে আনা।

তারা ইসিকে বলেছেন, অতীত অভিজ্ঞতায় দেখা গেছে- দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। সংবিধান ও আইনে ইসিকে যে ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে, তা তারা কতখানি প্রয়োগ করতে পারবে, সেটি অনেকাংশে নির্ভর করে নির্বাচনকালীন সরকারের ওপর। বিশিষ্টজনদের অনেকের ভাষ্য, নির্বাচনকালীন সরকার এমন হতে হবে, যাদের ভোটের ফলাফল নিয়ে কোনো আগ্রহ থাকবে না।

বিশিষ্টজনদের মধ্যে অনেকে ইসিকে সাহসিকতার সঙ্গে কাজ করতে বলেছেন। কমিশন যদি মনে করে সুষ্ঠু নির্বাচন করা সম্ভব নয়, তাহলে তাদের যেন পদত্যাগ করার মানসিকতা থাকে সেটিও বলেছেন কেউ কেউ। এদিকে সংলাপ শেষে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) হাবিবুল আউয়াল বলেন, আমরা বিশিষ্টজনদের প্রস্তাব ও পরামর্শ শুনেছি। এগুলো পর্যালোচনা করে আমরা প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেব।


Leave a Reply

Your email address will not be published.