রাজনীতিতে এবার আরেক নারীর উত্থান

রাজনীতিতে এবার আরেক নারীর উত্থান

রাজনীতি: নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে এবার বেশ ঘটা করেই আরেক নারী নেতৃত্বের উত্থান ঘটতে যাচ্ছে। তাঁর নাম পারভীন ওসমান। তিনি জাতীয় পার্টির প্রয়াত প্রেসিডিয়াম সদস্য ও এমপি নাসিম ওসমানের স্ত্রী।

ইতোমধ্যে একই পদে পারভীন ওসমানকেও পদায়িত করা হয়েছে। আর এর মধ্য দিয়ে তিনি রাজনীতিকে নাড়াচাড়া দিয়ে বসেছেন। গত কয়েকদিন ধরেই

বেশ আলোচিত এ পারভীন ওসমান। যদিও গত সংসদ নির্বাচন ও পরে সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি নিয়ে আলোচনায় ছিলেন। কিন্তু ওই সময়ে বেশ কড়া ভাষাতেই পারভীন ওসমান নিয়ে

মন্তব্য ছুড়েছিলেন তাঁরই দেবর নাসিম ওসমানের আসনে এমপি হওয়া ছোট ভাই সেলিম ওসমান। পরবর্তীতে করোনা সহ নানা কারণে পারভীন ওসমান রাজনীতি থেকেও দূরে যান।

মাঝে নাসিম ওসমান কল্যাণ ফাউন্ডেশনের ব্যানারে কিছু সামাজিক কাজ করেন তিনি। এর মধ্যে জাতীয় পার্টির অঙ্গ সংগঠন ছাত্র সমাজের কমিটি আসে তাঁর অনুকূলে।

যদিও জাতীয় পার্টির পদধারী নেতাদের একটি বড় অংশও তার থেকে বিচ্ছিন্ন। এর মধ্যে তিনি জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম মেম্বারে পদোন্নতি পান। এতদিন তিনি ছিলেন চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা।

পদোন্নতির পরেই নিজেকে জাহির করার প্রাণান্তর চেষ্টা শুরু করেছেন। ২৪ মার্চ জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের এক চিঠিতে পারভীন ওসমানকে দলের প্রেসিডিয়াম মেম্বার করেন।

তখন থেকেই বদলে যেতে থাকে দৃশ্যপট। দুইদিন পর ২৬ মার্চ শহরে র‌্যালি করেন পারভীন ওসমান। শহরের খানপুর হাসপাতাল রোড থেকে বের হওয়ার তাঁর নেতৃত্বে র‌্যালি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। একটি অটোরিকশায় চড়ে ওই র‌্যালির নেতৃত্ব দেন তিনি। মুক্তিযোদ্ধা আজহারুল ইসলাম, রিপন ভাওয়াল, আবদুল কাদির সহ আরো কয়েকজন ছিল চেনাজানার মধ্যে। পেছনে জাতীয় পার্টির উল্লেখযোগ্য কোন নেতা না থাকলে বহলে ছিল বিশাল একটি কর্মীবাহিনী।

পরদিন ২৭ মার্চ ছিল ছাত্র সমাজের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। এদিন ওই অনুষ্ঠানেও যোগ দেন পারভীন ওসমান। দুপুরে ওই কর্মসূচী শেষ করে বিকেলে শহরের মন্ডলপাড়ায় ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে কামাল মৃধার উৎসব বাস সার্ভিস উদ্বোধন করেন। এর আগে ২১ মার্চ শহরের চাষাঢ়ায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে এক অনুষ্ঠানে যোগ দেন পারভীন ওসমান। গত ২০ মার্চ নগরীর কলেজ রোড এলাকায় জাতীয় পার্টির প্রয়াত চেয়ারম্যান এরশাদের ৯২ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত দোয়া মাহফিল আয়োজন করেন পারভীন ওসমান।

১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ১০২তম জন্মদিন পারভীন ওসমানের আয়োজনে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজক ছিলেন তিনি। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পারভীন ওসমান তাঁর স্বামীর মৃত্যুর পর নারায়ণগঞ্জে জাতীয় পার্টির রাজনীতিতে সক্রিয় হতে শুরু করেন। কিন্তু বার বারই তাকে হোচট খেতে হয়েছে। বার বারই তিনি বঞ্চিত হয়েছেন কেন্দ্রীয় নেতাদের দ্বিমুখী সিদ্ধান্তে।

জানাগেছে, ২০১৪ সালে নাসিম ওসমানের মৃত্যুতে তাঁর শূন্য আসনে উপনির্বাচনে নির্বাচিত হওয়া সেলিম ওসমানের নির্বাচনী প্রচারনার সমাবেশ সহ বেশ কিছু অনুষ্ঠানে তাঁর উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসন থেকে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন দাবী করেন পারভীন ওসমান। তখন গুঞ্জন উঠেছিল একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পারভিন ওসমানই জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী হতে যাচ্ছেন। এ নিয়ে পারভীন ওসমান বলয়ে অনেকটাই আত্মবিশ্বাস ছিলো। কিন্তু কেন্দ্র শেষ পর্যন্ত তৎকালীন সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানকেই জাতীয় পার্টির মনোনয়ন দেন। বঞ্চিত হয়ে ছিলেন নাসিম ওসমান পতিœ পারভীন ওসমান। গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে মনোনয়ন প্রত্যাশা করা পারভীন ওসমান তখন বলেছিলেন, ‘নারায়ণগঞ্জ জাতীয় পার্টি মানেই নাসিম ওসমান। নাসিম ওসমান আমাকে বলে গেছে, আমার অনুপস্থিতিতে তুমি দলের হাল ধরবে এবং রাজনীতি করবে। কে চাপ দিল, না দিল সেটা নিয়ে আমার কোনো মাথাব্যথা নেই।

সুত্রঃ দ্যা নিউজ নারায়ণগঞ্জ ডটকম


Leave a Reply

Your email address will not be published.