এবার ঐক্যের আহ্বান জানালেন জাতীয় মসজিদের নতুন খতিব


বাংলাদেশ: ঐক্যের আহ্বান জানিয়েছেন বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের নবনিযুক্ত খতিব মুফতি রুহুল আমীন। ৩১ মার্চ বায়তুল মোকাররমের খতিব হিসেবে নিয়োগের পর

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক মো. মুশফিকুর রহমান চিঠি দেন মুফতি রুহুল আমীনকে। শুক্রবার (১ এপ্রিল) জুমার নামাজে অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে তিনি এ দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

খতিব মুফতি রুহুল আমীন বলেন, ‘কালেমার ভিত্তিতে কল্যাণমুখী যেকোনও কাজে দলমত নির্বিশেষে ঐক্যবদ্ধ হতে চাই। দেশ না থাকলে, মাটি না থাকলে আমরা সিজদা করবো কীভাবে।

তাই দেশ-জাতির জন্য, কল্যাণের জন্য সার্বিক বিষয়ে ঐক্য প্রয়োজন।’ যোগদানের প্রথম দিন আসন্ন রমজানে সিন্ডিকেট করে দ্রব্যমূল্য না বাড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন মুফতি রুহুল আমীন।

শুক্রবার জুমার নামাজের সময় তিনি বলেন, ‘যারা সত্যবাদী ব্যবসায়ী এবং আল্লাহর হুকুম মেনে ব্যবসা করেন তাদের হাসর হবে আম্বিয়াদের সঙ্গে। রমজানকে সামনে রেখে আপনারা (ব্যবসায়ী) ছাড়া দ্রব্যমূল্যের গতিতে কেউ লাগাম টানতে পারবে না।

সিন্ডিকেট করবেন না। আল্লাহ আপনাদের বরকত দেবেন।’ নামাজ শেষে মোনাজাতে দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করে দোয়া করেন তিনি।ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বোর্ড অব গভর্নরসের গভর্নর ছিলেন রুহুল আমীন। গওহরডাঙ্গা কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের সভাপতি ও কওমি মাদ্রাসার উচ্চ শিক্ষা বোর্ড আল-হাইআতুল উলয়া লিল-জামি’আতিল কওমিয়া বাংলাদেশের সদস্যও তিনি। খুতবা আরবি শব্দ, যার অর্থ বক্তৃতা।

যিনি খুতবা দেন তিনিই খতিব। ইসলামে খতিবকে সম্মানের দৃষ্টিতে দেখা হয়। পদটিও বেশ মর্যাদাপূর্ণ। বিজ্ঞ আলেম হওয়ার পাশাপাশি ধৈর্যশীল, মিষ্টভাষী ও উত্তম চরিত্রের ব্যক্তিকে খতিব নিয়োগের বিষয়ে ইসলামে বিধান আছে। মুফতি রুহুল আমীন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট থেকে প্রার্থী হতে চেয়েছিলেন। নড়াইল-১ আসন থেকে নৌকা প্রতীকে নির্বাচনে আগ্রহ প্রকাশ করে প্রচারণাও চালিয়েছিলেন। তবে শেষ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের সম্মতি না পাওয়ায় প্রার্থী হননি। ১৯৬২ সালের ১২ মার্চ গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া উপজেলার গওহরডাঙ্গায় জন্ম মুফতি রুহুল আমীনের। তার বাবা খ্যাতনামা আলেম শামছুল হক ফরিদপুরী। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে আন্তরিক সম্পর্ক ছিল মাওলানা শামছুল হকের। সেই সূত্র ধরেই বঙ্গবন্ধু পরিবারের সঙ্গে সুসম্পর্ক তাদের।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘কওমি জননী’ উপাধিতে ভূষিত করেছিলেন মুফতি রুহুল আমীন। ২০১৮ সালের ৪ নভেম্বর কওমি মাদ্রাসার সনদের স্বীকৃতি দেওয়ায় শোকরানা মাহফিলের আয়োজন করে আল-হাইয়াতুল উলয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া। সেখানেই প্রধানমন্ত্রীকে এই উপাধি দেন রুহুল আমীন। ২০০৩ সাল থেকে গহরডাঙ্গা মাদ্রাসার মুহাতামিম হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন মুফতি রুহুল আমীন। মাসিক আল আশরাফ পত্রিকার সম্পাদকও তিনি। এছাড়া বাবার প্রতিষ্ঠিত অরাজনৈতিক সংগঠন খাদেমুল ইসলাম বাংলাদেশের আমিরের দায়িত্ব পালন করছেন মুফতি আমীন।

এর আগে জাতীয় মসজিদের খতিব ছিলেন মাওলানা মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন। গত ৩ ফেব্রুয়ারি তিনি মারা যান।


Leave a Reply

Your email address will not be published.