এবার জামায়াতের লক্ষ্যের কথা জানালেন ডা: শফিকুর রহমান


খবর: বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমির ডা: শফিকুর রহমান বলেছেন, বাংলাদেশ জামায়াত ইসলামী প্রতিষ্ঠা হয়েছে

একদল আদর্শ মুমিন মুসলিম তৈরি করা এবং একটি আদর্শ ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য। শুক্রবার সকালে বাংলাদেশ জামায়াত ইসলামী

নারায়ণগঞ্জ মহানগরী আয়োজিত এক কর্মী সম্মেলনে ভার্চুয়ালি প্রধান অতিথির বক্তব্য দানকালে তিনি একথা বলেন। মহানগরী আমির মাওলানা মঈন উদ্দিন

আহমদের সভাপতিত্বে ও মহানগর সেক্রেটারি মাওলানা আবু নকীবের সঞ্চালনায় সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও

ঢাকা অঞ্চল দক্ষিণের পরিচালক সাইফুল আলম খান মিলন, কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী উত্তরের আমির সেলিম উদ্দিন ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের

সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি ঢাকা অঞ্চল দক্ষিণের টিম সদস্য আব্দুল জাব্বার। জামায়াতের আমির বলেন, আদর্শ মানুষ হতে হলে আল্লাহর সাথে গভীর সম্পর্ক স্থাপন করতে হবে।

আর এজন্য আমলের পরিবর্তন এবং পরকালকে প্রাধান্য দিয়ে দুনিয়াবী জীবন পরিচালনা করতে হবে। তিনি আরো বলেন, কতগুলো পরিবারের সমষ্টি যেমন সমাজ এবং সমাজের সমষ্টি হচ্ছে রাষ্ট্র,

একটি আদর্শ ইসলামী রাষ্ট্র – প্রতিষ্ঠা করতে হলে প্রত্যেকটি পরিবারকে একটি আদর্শ পরিবার হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। এজন্য নিয়মিত পারিবারিক বৈঠক এবং কোরআন ও হাদিসের প্রকৃত শিক্ষার মাধ্যমে একটি আদর্শ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার জন্য আহ্বান জানান তিনি।

বিশেষ অতিথি সাইফুল আলম খান মিলন বলেন, ১৯৪০ সালের আগস্ট মাসে এক বিশেষ সন্ধিক্ষণে মাওলানা মওদুদী রাহিমাহুল্লাহ উপমহাদেশের মানুষের মুক্তির জন্য জামায়াতে ইসলামী নামে একটি সংগঠনের যাত্রা শুরু করেন। তার আদর্শ আন্দোলনে সম্পৃক্ত হয়ে বর্তমানে বিশ্বব্যাপী ইসলামী আন্দোলনের অগ্রযাত্রা দেখে বাতিলের আতঙ্ক শুরু হয়েছে। তাই জামায়াত ইসলামীর শুধু নয় যেখানে ইসলাম প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম সেখানেই নানা অপবাদ দিয়ে ইসলামী আন্দোলনকে বা ইসলামী সংগঠনকে দমনের চেষ্টা করা হচ্ছে। তবে যে আন্দোলনের লক্ষ্য হচ্ছে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করা, জান্নাত লাভ করা, জাহান্নামের আগুন থেকে মুক্তি পাওয়া, সেই সংগ্রামকে বাতিল শক্তি শত চেষ্টা করেও দমন করতে পারবে না। বিশেষ অতিথি সেলিম উদ্দিন বলেন, কোরআন হাদিস ও ইসলামী সাহিত্য অধ্যয়নের মাধ্যমে আমাদেরকে আদর্শ মানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে হবে। পাশাপাশি দরিদ্র, বঞ্চিত অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে। আমলে জিন্দেগী সমৃদ্ধ করার জন্য রুকন শপথ নেয়ার সিদ্ধান্ত নিতে হবে। সমাজে দ্বীন কায়েমের সংগ্রামে শাহাদাতের তামান্না নিয়ে কাজ করতে হবে।

আবদুল জব্বার বলেন, আমলে জিন্দেগী সমৃদ্ধ করার মাধ্যমে আল্লাহর সাথে আমাদের গভীর সম্পর্ক স্থাপন করার চেষ্টা করতে হবে। সম্মেলনের সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা মঈন উদ্দিন আহমেদ বলেন, রমজান মাস আমাদের খুবই নিকটে, একজন সত্যিকারের মুমিন হিসেবে, একজন মুসলিম হিসেবে আল্লাহর সাথে গভীর সম্পর্ক স্থাপনের জন্য ও জীবনের গুনাহ মাফ পাওয়ার জন্য রমজান মাসকে আত্মত্যাগের এবং আত্মগঠনের মাস হিসেবে পালন করার সিদ্ধান্ত নিতে হবে, রমজানের প্রতিটি মুহূর্ত যেন আল্লার ইবাদতে কাটাতে পারি সেভাবে আমাদের পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে। সম্মেলন সফল করার জন্য তিনি সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের আন্তরিক মোবারকবাদ জানান। সম্মেলনে আরো বক্তব্য রাখেন সহকারী সেক্রেটারি মাওলানা জামাল হোসেন ও আবু আসিফ প্রমুখ।


Leave a Reply

Your email address will not be published.