সেনাবাহিনীর গাড়িতে হা’মলা চালিয়ে চালককে মা’রধর, ছাত্রলীগ কর্মী গ্রেফতার

সেনাবাহিনীর গাড়িতে হা’মলা চালিয়ে চালককে মা’রধর, ছাত্রলীগ কর্মী গ্রেফতার

বাংলাদেশ: গাজীপুরে সেনাবাহিনীর `লোগো ও স্টিকার’ সম্বলিত বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরির (বিএমটিএফ) ট্রাকে হা’মলা চালিয়েছে কয়েক যুবক। এ সময়

তারা ওই ট্রাক ভাংচুর এবং চালক ও তার সঙ্গীকে মা’রধর করেছে। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অ’ভিযোগে কাজী আজহার উদ্দিন ওরফে সৌরভ (২২) নামে ছাত্রলীগের এক কর্মীকে গ্রে’ফতার করেছে।

শুক্রবার জিএমপি’র সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রফিকুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। গ্রেফতার কাজী আজহার গাজীপুর শহরের সদর থানার ছায়াবিথী,

নয়াবাড়ি শ্মশান এলাকার কাজী রিয়াজ উদ্দিনের ছেলে। মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী পরিচালিত বাংলাদেশ মেশিন টুলস্ ফ্যাক্টরি লিমিটেডের (বিএমটিএফ)

একটি ড্রাম ট্রাক প্রশাসনিক কাজে বৃহস্পতিবার ভোরে ঢাকা সেনানিবাসে যায়। কাজ শেষে সেনাবাহিনীর ‘লোগো ও স্টিকার’ সংযুক্ত ওই সরকারি ট্রাকটি রাতে ফিরছিল।

পথে রাত সাড়ে ৮টার দিকে মহানগরীর জোড়পুকুর পাড়-নয়াবাড়ি শশ্মান ঘাট সড়কে পৌঁছলে মা’মলায় অভিযুক্ত মেহেদী, সম্রাট ও সৌরভসহ তাদের ১৫ থেকে ২০ জন সহযোগী ওই ট্রাকে ঢিল ছুঁড়ে গতিরোধ করে।

এ সময় চালক ট্রাক থামালে যুবকরা ধুলো উড়িয়ে ট্রাক চালানোর অভিযোগ তুলে ইউনিফর্ম পরিহিত ট্রাকের চালক নুর আলম সিদ্দিকী ও তার সঙ্গী বিএমটিএফ’র মালী নুরুল ইসলামকে মা’রধর করে। তারা ক্রিকেট ব্যাট, স্ট্যাম্প ও লাঠি নিয়ে হামলা চালিয়ে কাঁচসহ ট্রাকটি ভাংচুর করে।

খবর পেয়ে বিএমটিএফ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছে আহত চালক ও মালীকে উদ্ধার এবং অভিযুক্ত হামলাকারী সৌরভকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। এ সময় অন্য অভিযুক্তরা পালিয়ে যায়। আহত দু’জনকে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। জিএমপি’র সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় তিনজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরো ১৫ থেকে ২০ জনকে আসামি করে সদর থানায় মামলা করেছেন বিএমটিএফ’র লিগ্যাল অফিসার মুহাম্মদ আবু হানিফ। গ্রেফতারকৃত সৌরভকে শুক্রবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। অন্যান্য অভিযুক্তদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যহত রয়েছে।


Leave a Reply

Your email address will not be published.