মাঠে সক্রিয় হওয়ায় বিএনপিকে নিয়ে যা বলল জামায়াত


রাজনীতি: দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে মাঠের কর্মসূচিতে সক্রিয় হওয়ায় বিএনপিকে সাধুবাদ জানিয়েছে ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী।

দলটির ঢাকা মহানগর দক্ষিণের আমির নূরুল ইসলাম বুলবুল বিএনপির অনশনে সংহতি জানিয়ে বলেন, বিএনপি মাঠের কর্মসূচিতে নেমেছে। এজন্য আমরা মোবারকবাদ জানাই।

শনিবার সকাল থেকে কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে প্রতীকী অনশন শুরু করে বিএনপি। এতে জামায়াতের নেতাকর্মীরাও সংহতি জানাতে এসেছেন।

যদিও দলটির ঢাকা মহানগর দক্ষিণের আমির নূরুল ইসলাম বুলবুলকে পৌঁছে দিতে এসে মারধরের শিকার হয়েছেন জামায়াতের নেতাকর্মীরা। আহত তিনজন জামায়াতকর্মীকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

জামায়াত ছাড়াও অনশনে বিএনপি জোটের একাধিক শরিক দলের শীর্ষ নেতারা সংহতি জানিয়েছেন। বক্তব্য দিতে গিয়ে জামায়াত নেতা বুলবুল বলেন, আজকে আমরা দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি ও সরকারের লুটপাটের বিরুদ্ধে মাঠে নেমে এসেছি।

দেশের মানুষ সরকারকে টেনেহিঁচড়ে নামানোর জন্য ইস্পাত কঠিন ঐক্য গড়ে তোলার প্রস্তুতি নিচ্ছে। দেশ প্রেমিক, ইসলামি জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ করে মাঠে নামতে হবে।

বেগম খালেদা জিয়াকে বন্দি করে রাখা হয়েছে অভিযোগ করে জামায়াতের এই নেতা বলেন, গণতন্ত্র আজকে অবরুদ্ধ। দেশকে কারাগারে পরিণত করা হয়েছে। বেগম খালেদা জিয়াকে কারারুদ্ধ করে গণতন্ত্রকামী মানুষকে শিকলবন্দি করা হয়েছে। বুলবুল বলেন, এই সরকারের কাছে দাবি জানিয়ে লাভ নেই। নির্দলীয় সরকারের অধীনে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠার দাবি আদায় করতে হবে।ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমানের সভাপতিত্বে এ সময় আরো বক্তব্য রাখেন,

স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মঈন খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, ভাইস চেয়ারম্যান আহমদ আজম খান, উপদেষ্টা হাবিবুর রশিদ হাবিব, আব্দুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, তথ্য বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল, স্বেচ্ছাসেবক বিষয় সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপু, সমাজসেবা সম্পাদক কামরুজ্জামান রতন, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম,

ঢাকা দক্ষিনের মেয়র প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন, যুবদল সভাপতি সাইফুল ইসলাম নীরব, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, স্বেচ্ছাসেবক দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির ভুইঁয়া জুয়েল, কৃষকদলের সভাপতি হাসান জাফির তুহিন, সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম বাবুল, নির্বাহী কমিটির সদস্য রাজিব আহসান, আকরামুল হাসান মিন্টু, আব্দুস সত্তার প্রমুখ।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, যুবদলের সহ-সভাপতি এস এম জাহাঙ্গীর, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সভাপতি গোলাম মাওলা শাহিন, ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, সাধারন সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আমিনুর রহমান আমিন, সহ-সভাপতি মামুন হাসান, সাজিদ হাসান বাবু, যুগ্ম সম্পাদক তানজিল হাসান, রিয়াদ ইকবাল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের আহ্বায়ক রাকিবুল ইসলাম রাকিব, ঢাকা মহানগর পূর্ব ছাত্রদলের সভাপতি খালিদ হাসান জ্যাকি, উত্তর ছাত্রদলের সভাপতি রানা আহমেদ, দক্ষিণের সভাপতি পাভেল শিকদার, নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক খায়রুল ইসলাম সজীব, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শ্রমিক দলের সভাপতি সুমন ভুইঁয়া প্রমুখ। উল্লেখ্য প্রতীকী অনশনে প্রধান অতিথি বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে পানি পান করিয়ে প্রতীকী অনশন ভাঙান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর আনোয়ারুল্লাহ।


Leave a Reply

Your email address will not be published.