যে কারণে ‘দুর্বৃত্তের’ পি’টুনির শিকার আ. লীগ নেতা, জানা গেল আসল রহস্য!


রাজনীতি: বগুড়ার আদমদীঘির বিনাহালি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক আজাহার আলীকে লাঞ্ছিত করার পরদিনই ‘দুর্বৃত্তের’ মারধরের শিকার হয়েছেন সেই

আওয়ামী লীগ নেতা মকলেছার রহমান। সোমবার সকাল ১১টার দিকে বিনাহালি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটে। তবে এই ঘটনার পর বন্ধ রয়েছে ওই বিদ্যালয়। এ নিয়ে উত্তেজনা বিরাজ করছে গ্রামে।

জানা গেছে, আহত আওয়ামী লীগ নেতাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ বিষয়ে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আদমদীঘি উপজেলার বিনাহালি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের ম্যানেজিং

কমিটির সভাপতি পদ নিয়ে বেশ কিছুদিন আগে থেকে দুটি পক্ষের মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। গত ৩ এপ্রিল রোববার বেলা ১১ টায় আওয়ামীলীগ নেতা মকলেছার রহমান প্রধান শিক্ষকের কক্ষে প্রবেশ করে বাকবিতণ্ডার

জেরে এক পর্যায়ে আজাহার আলী নামের এক সিনিয়র শিক্ষককে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন। এ নিয়ে ছাত্রীরা মকলেছার রহমানের বিচার দাবিতে বিদ্যালয় চত্বরে একটি বিক্ষোভ মিছিল করে। এ ঘটনায় এলাকায় চাপা উত্তেজনা চলছিল।

এর জের ধরে গতকাল সোমবার বেলা ১১টায় আওয়ামীলীগ নেতা মকলেছার রহমান আদমদীঘি ভাড়া বাসা থেকে বিনাহালি তার গ্রামে যাবার সময় বালিকা বিদ্যালয়ের কাছে পৌঁছালে দুর্বৃত্তের মারধরের শিকার হন। পরে স্থানীয় ও পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মকলেছার রহমানকে উদ্ধার করে আদমদীঘি হাসপাতালে ভর্তি করান।

মকলেছার রহমান বলেন, গত রোববারের ঘটনার জের ধরে শিক্ষক আজাহার আলীর লোকজন পথরোধ করে হত্যার উদ্দেশে আমাকে মারধর করে। তবে আজাহার আলী বলেন, কারা তাকে মারপিট করেছে তা আমার জানা নেই। আদমদীঘি থানার অফিসার ইনচার্জ জালাল উদ্দীন বলেন, মকলেছার রহমানকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ বিষয়ে মামলা দায়েরের প্রস্ততি চলছে।


Leave a Reply

Your email address will not be published.