মিলনের পদাবনতি, শওকতকে আবারও নোটিশ বিএনপির

মিলনের পদাবনতি, শওকতকে আবারও নোটিশ বিএনপির

রাজনীতি: বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী আ ন ম এহসানুল হক মিলনকে দলের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদকের পদ থেকে নির্বাহী সদস্য করা হয়েছে।

৫ এপ্রিল দলের কেন্দ্রীয় সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদের সই করা এক চিঠিতে এ কথা বলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৭ এপ্রিল) দুপুরে দলীয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

একইসঙ্গে দলের অনুমতি ছাড়া সমাবেশ করায় ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদের কাছে ব্যাখ্যা চেয়েছে বিএনপি। বিএনপি সূত্র জানায়, দলের শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে দূরত্বকে কেন্দ্র করে আ ন ম এহসানুল হক

মিলনের পদাবনতি ঘটেছে। বিগত বেশ কয়েক বছর ধরে নেতৃত্বের সঙ্গে তার সম্পর্ক ও যোগাযোগ ভালো যাচ্ছিল না। এদিকে, দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে পেশাজীবীদের ব্যানারে সমাবেশ করায় শওকত মাহমুদের কাছে ব্যাখ্যা চেয়েছে বিএনপি।

শওকত মাহমুদ বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান। বুধবার (৬ এপ্রিল) দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর সই করা চিঠিতে তার কাছে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়। গত ২৭ মার্চ জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ‘দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি রোধ, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার

ও বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির’ দাবিতে ‘পেশাজীবী সমাজের’ ব্যানারে সমাবেশ হয়। ওই সমাবেশে শওকত মাহমুদসহ বিএনপির কেন্দ্রীয় ও ঢাকা মহানগর বিএনপি ও অঙ্গ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা অংশগ্রহণ করেন। এই সমাবেশে লে. জেনারেল (অব.) চৌধুরী হাসান সারওয়ার্দীরও ছিলেন।

এই নিয়ে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকে শওকত মাহমুদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। গত ১ এপ্রিল বিএনপি সমর্থক সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের এক বৈঠকে তাকে বহিষ্কার করতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে সুপারিশ করা হয়।

এর আগে ২০১৯ সালের ৫ ডিসেম্বর হাইকোর্টের সামনে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি জানানো হয়। পরের বছরের ১৩ ডিসেম্বর ‘সরকারের পতনের’ লক্ষ্যে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ ও জমায়েত করা হয়। ওই প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত থাকায় ওই সময়ে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজউদ্দিন আহমেদ, শওকত মাহমুদকে কারণ দর্শাও নোটিশ দেওয়া হয়েছিল।


Leave a Reply

Your email address will not be published.