সম্ভ্রম বাঁচাতে পুলিশের এসআইকে কু’পিয়ে জখম করলেন গৃহবধূ!

সম্ভ্রম বাঁচাতে পুলিশের এসআইকে কু’পিয়ে জখম করলেন গৃহবধূ!

ঝালকাঠিতে কাঁঠালিয়া উপজেলার তারাবুনিয়া পুলিশ ক্যাম্পের এসআই আলমগীর হোসেনের বিরুদ্ধে এক গৃহবধূকে ধ’র্ষণ চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, ধ’র্ষণ চেষ্টাকালে পুলিশের ঐ এসআইকে ধারালো অ’স্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে ধ’র্ষণের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছেন সেই গৃহবধু।

উপজেলার পাটিখালঘাটা ইউনিয়ন পরিষদের দুই নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য শাহিন হাওলাদার জানান, তাঁরাবুনিয়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র এলাকায় ভুক্তভোগী

ওই নারীর ভগ্নিপতির একটি চায়ের দোকান আছে। ভগ্নিপতির দোকানে মাঝেমধ্যে যাতায়াতের ফলে ওই নারীর পরিচয় হয় এসআই আলমগীরের সঙ্গে।

আলমগীর তাঁর কাছ থেকে বিভিন্ন সময় টাকা ধারও নিয়েছেন। গত সোমবার রাতে (৪ এপ্রিল) এসআই আলমগীর ওই নারীর বাড়িতে যায়। তাঁর স্বামী চট্টগ্রামে চাকরি করেন।

বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে তাকে ধ’র্ষণচেষ্টা করে ওই এসআই। নিজের সম্ভ্রম বাঁচাতে ধারালো অ’স্ত্র দিয়ে এসআই আলমগীরকে কু’পিয়ে রক্ষা পান তিনি। এ সময় পুলিশ

কর্মকর্তার ব্যবহৃত মুঠোফোনটিও রেখে দেন ওই নারী। ভুক্তভোগী ওই নারী জানান, তাঁকে ঘরে একা পেয়ে ধ’র্ষণচেষ্টা করলে তিনি পুলিশ কর্মকর্তাকে কু’পিয়ে আহত করে ৯৯৯ এ ফোন করেন।

খবর পেয়ে কাঁঠালিয়া থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে যাওয়ার আগেই এসআই আলমগীর ওই বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। এ ব্যাপারে তিনি থানায় অভিযোগ করতে চাইলে পুলিশ আগে মেডিক্যালে গিয়ে পরীক্ষা করিয়ে আসতে বলে।

তিনি অভিযোগ করেন, বর্তমানে আমি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। লোক পাঠিয়ে আমাকে চাপ দেওয়া হচ্ছে, আমি মামলা করলে পুলিশও আমার বি’রুদ্ধে মামলা করবে। আমি বোনের বাসায় আছি। এ ঘটনার বিচার চাই। আমার কাছ থেকে ধার নেওয়া টাকাও ফেরৎ দেওয়ার দাবি জানাই।

কাঁঠালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুরাদ আলী সাংবাদিকদের জানান, গত সোমবার রাত ৮ টার দিকে ওই নারী ৯৯৯ নম্বরে ফোন দিয়ে জানায়, তাকে ধ’র্ষণচেষ্টা করা হয়েছে। খবর পেয়ে সেখানে গিয়েছি। তখন গৃহবধু জানায়, তাকে জোরপূর্বক ধ’র্ষণচেষ্টা করায় কুপিয়ে আহত করে এস.আই আলমগীরের মোবাইল রেখে দেওয়া হয়েছে। যদিও মোবাইলটি সে দেখাতে পারেনি। ঘটনাস্থলে গিয়ে এসআই আলমগীরকে পায়নি কাঁঠালিয়া থানা পুলিশ।

ওসি মুরাদ আলী আরো বলেন, আমি রাতেই ওই মহিলাকে বলেছি সকালে ঝালকাঠি গিয়ে মেডিক্যাল করিয়ে কাঁঠালিয়া থানায় এসে লিখিত অভিযোগ করতে। বুধবার বিকেল পর্যন্ত সে কোন অভিযোগ করেনি। এসআই আলমগীরের সাথে ঘটনার পর থেকে ওসির দেখা বা কথা হয়নি বলেও তিনি জানান।

এ প্রসঙ্গে কাঁঠালিয়া থানার তাঁরাবুনিয়া পুলিশ ক্যাম্পের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক মাহাবুবুর রহমান বলেন, আমি এ ধরনের একটি ঘটনার কথা শুনেছি। কিন্তু আমি ছুটি শেষে মঙ্গলবার ক্যাম্পে ফিরে কিছুই জানি না। আমি এখন সাক্ষি দিতে কুষ্টিয়া যাচ্ছি। এসআই আলমগীর ক্যাম্পেই রয়েছেন। এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য এসআই আলমগীরের মুঠোফোনে কল করে তা বন্ধ পাওয়া গেছে।


Leave a Reply

Your email address will not be published.