মিষ্টি কুমড়া দিয়ে বেগুনি বানাতে বলা প্রধানমন্ত্রীর সেই বক্তব্য নিয়ে যা বললেন মির্জা ফখরুল

মিষ্টি কুমড়া দিয়ে বেগুনি বানাতে বলা প্রধানমন্ত্রীর সেই বক্তব্য নিয়ে যা বললেন মির্জা ফখরুল

দেশজুড়ে: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সরকার বলেছিল, আপনাদের ১০ টাকা কেজি চাল দেবে। কিন্তু এখন চালের কেজি ৭০ টাকা। তেল,

লবণ, চিনির দাম কত? বাড়তি দামের কারণে রমজানে এখন আমরা একটা শসা কিনতে পারি না, বেগুন কিনতে পারি না।কিন্তু দুঃখ হয়, যখন প্রধানমন্ত্রী আমাদের রান্নার নতুন রেসিপি দেন।

তিনি বলেছেন, ‘মিষ্টি কুমড়া দিয়ে বেগুনি বানাও’। যখন তারা পণ্যের দাম কমাতে পারছে না, তখন এসব কথা বলছে।শনিবার (৯ এপ্রিল) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে জাতীয়তাবাদী শ্রমিকদল

আয়োজিত এক বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে তিনি এসব কথা বলেন। মির্জা ফখরুল বলেন, গতকাল তথ্যমন্ত্রী আরেকটি তত্ত্ব আবিষ্কার করেছেন গতকাল। মূল্য বৃদ্ধির পেছনে নাকি বিএনপির কারসাজি

আছে। সবসময় তথ্যমন্ত্রী এটা বলেন। সবকিছুতে যদি বিএনপিই থাকে তাহলে তোমরা ক্ষমতায় বসে আছো কেন? ক্ষমতা ছেড়ে দাও, বিএনপির হাতে ক্ষমতা দিয়ে দেখ, বিএনপি দেশ চালাতে পারে

কিনা।তিনি বলেছেন, আওয়ামী লীগ জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করেছে। এটি আজ নতুন না। ১৯৭২ থেকে ৭৫ সাল পর্যন্ত যখন আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ছিল তখনও একই চিত্র ছিল। ১৯৭৪ সালে

আওয়ামী লীগ দেশ পরিচালনা করতে না পারায় তখন দুর্ভিক্ষ হয়েছিল। আওয়ামী লীগের ইতিহাসটাই এমন। তাদের ইতিহাস চুরির, লুটপাটের ও ডাকাতির। মানুষকে জিম্মি করে তারা ক্ষমতায় যায় এবং তাদের আখের গোছায়।

মির্জা ফখরুল বলেন, আজ পত্রিকায় আছে গ্যাসের দাম বাড়ার কারণ হলো প্রতি বছর ২০ কোটি টাকার গ্যাস চুরি হচ্ছে। এটা জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ম. তামিম বলেছেন। তিনি বলেছেন, বাংলাদেশে এখন যারা ক্ষমতায় আছে তাদের গ্যাস উত্তোলন করার কোনো ইচ্ছা নাই।

কারণ আমদানি করলে অনেক বেশি পয়সা পাওয়া যায়। বাংলাদেশের যিনি গ্যাস আমদানি করেন তার নামটি বলবার দরকার নেই। অনেকে তাকে ‘দরবেশ’ বলে ডাকেন। সেই দরবেশ আমাদের শেয়ার-মার্কেট লুট করেছে। এখন গ্যাস আমদানি করে দেশে গ্যাস উত্তোলনের সম্ভাবনাকে নষ্ট করছে। তারা এখন মানুষের পকেট থেকে টাকা কেটে নিয়ে যাচ্ছে। এই সরকার হচ্ছে সেইসব লোকেদের সরকার, যারা কিছু লোককে বড়লোক করতে গোটা রাষ্ট্রব্যবস্থাকে ব্যবহার করছে। এই কাজে যারা বাধা দিচ্ছে, তাদের গ্রেফতার করছে মিথ্যা মামলায় হয়রানি করছে।

ঢাকা শহরের প্রত্যেকটি ট্যাপের পানি এখন দূষিত মন্তব্য করে তিনি বলেন, আপনি ট্যাপ খুলে দেখেন, পানিতে দুর্গন্ধ এবং ব্যাকটেরিয়াতে বোঝাই। প্রতিদিন ১৪/১৫শ মানুষের ডায়রিয়া হচ্ছে। গতকাল আইসিডিডিআরবিতে বলা হয়েছে ৬৫ বছরের এতো ডায়রিয়ার রোগী কখনো আসেনি। বিএনপি মহাসচিব বলেন, আমাদের হাতে সময় নেই। এখন আমাদের পরিবর্তন আনতে হবে। এ পরিবর্তন আনতে গেলে আমাদের বুকের ওপর যে দানবীয় সরকার চেপে বসে আছে, তাকে সরানোর জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

সমাবেশে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, একজন মন্ত্রী সবসময়ই বিএনপি নিয়ে কথা বলেন। তার চাকরি হচ্ছে এটা— ‘তুমি প্রতিদিন বিএনপি, জিয়াউর রহমান, খালেদা জিয়া, তারেক রহমানের বিরুদ্ধে বক্তৃতা করবা’। এটা না করলে তার চাকরি থাকবে না। উনি বলেছেন, ‘নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম কমতির দিকে। তারমানে দাম বাড়তি ছিল এবং না বাড়লে তো কমার দিকে যাওয়ার কথা না।’

নজরুল ইসলাম খান বলেন, আমরা যখন পণ্যের দাম বাড়ার বিষয়ে প্রতিবাদ করি, তখন আমাদের ইশরাককে গ্রেপ্তার করা হয়, মঞ্জুকে গ্রেফতার করা হয়। আরে ভাই, আমরা তো প্রতিবাদ করবই। আমরা যারা শ্রমজীবী মানুষ তারা কঠোর পরিশ্রম করে, হালাল উপার্জন দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করি। আমাদের বউ সন্তানদের হালাল উপার্জন খাওয়াই। আপনাদের মতো শেয়ার মার্কেট লুট, ব্যাংক লুটের আর ডাকাতির টাকা দিয়ে সংসার চালাই না। জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসাইনের সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপির চেয়ারপার্সন উপদেষ্টা আবদুস সালাম প্রমুখ।


Leave a Reply

Your email address will not be published.