অভিনেতা ফারুকের মৃ’ত্যু নিয়ে বড় বড় নেতা সেলিব্রেটিদের বিভ্রান্তি মূলক পোষ্ট! যা বললেন স্ত্রী

অভিনেতা ফারুকের মৃ’ত্যু নিয়ে বড় বড় নেতা সেলিব্রেটিদের বিভ্রান্তি মূলক পোষ্ট! যা বললেন স্ত্রী

মিডিয়া: এর আগেও তারকাদের নিয়ে এমন ঘটনা ঘটেছে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় থাকা তারকার দীর্ঘদিন খোঁজখবর না পেয়ে যে যার মতো করে সংবাদ লিখে দিচ্ছে। অবশ্য এ ধরনের সংবাদ দায়িত্বশীল কোনো গণমাধ্যমে হয় না।

সামাজিকমাধ্যমে যে যার মতো করে, কোনো সোর্স উল্লেখ ছাড়াই এমন বিভ্রান্তি ছড়ানোর ঘটনা ঘটছে প্রায়ই। সবশেষ এই তালিকায় যুক্ত হয়েছে অভিনেতা আকবর হোসেন পাঠান ফারুকের নাম।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর একাধিক দায়িত্বশীল ব্যক্তির ভেরিফাইড ফেসবুক আইডি থেকে নায়ক ফারুকের মৃত্যুর খবর জানিয়ে শোক প্রকাশ করা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি আলোচনা হয়েছে পরলোকগত আওয়ামী

লীগ নেতা আবদুর রাজ্জাকের ছেলে নাহিম রাজ্জাকের ভেরিফাইড ফেসবুক থেকে দেয়া একটি পোস্ট। ওই পোস্টে লেখা হয়েছে, একটি শোক সংবাদ। ঢাকা- ১৭ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য আকবর হোসেন পাঠান

ফারুক সিঙ্গাপুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। তার মৃত্যুতে আমি গভীরভাবে শোকাহত। শোকার্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি এবং মহান আল্লাহ্ রাব্বুল আলামিনের কাছে দোয়া করছি, তাকে জান্নাতুল ফেরদৌস দান করুন।

আমীন। নাহিম রাজ্জাকের এই পোস্টে কোনো সূত্র উল্লেখ করা হয়নি। বিষয়টি নিশ্চিত হতে অভিনেতা ফারুকের ঘনিষ্ঠজন হিসেবে পরিচিত নায়ক আলমগীরের সাথে যোগাযোগ করে নয়া দিগন্ত। তিনি জানিয়েছেন, এই খবরের কোনো ভিত্তি নেই। আজ (বৃহস্পতিবার) সন্ধ্যার পর ভাবীর সাথে (নায়ক ফারুকের স্ত্রী) আমার কথা হয়েছে। তিনি বলেছেন,

আপনার ভাইয়ের অবস্থা এখন উন্নতির দিকে। এই বিষয়ে নায়ক ফারুকের স্ত্রী ফারহানা পাঠান বলেন, ‘মানুষের মৃত্যু নিয়ে রসিকতা ঠিক নয়। আল্লাহর রহমতে আপনাদের মিয়াভাই এখনো বেঁচে আছেন, ভালো আছেন। আমি জানি না মানুষ মৃত্যুর সংবাদ নিয়ে প্রতিযোগিতা করে কী আনন্দ পান?’

মায়ের মতো গুজব রটনাকারীদের প্রতি প্রশ্ন ছুড়ে দিয়েছেন ফারুকের ছেলে রওশন হোসেন পাঠান শরৎ। তিনি বলেন, একের পর এক ফোন আসছে। আব্বু নাকি মারা গেছে। আমরা বুঝতে পারছি না কারা যে এসব খবর ছড়ায়! কী লাভ তাদের?’ ‘বাস্তবতা হচ্ছে আব্বুর অবস্থা গত ২৪ ঘণ্টায় অনেক উন্নতি হয়েছে।

ডাক্তাররা জানিয়েছেন তিনি আস্তে আস্তে সুস্থ হয়ে যাবেন। তবে একটু সময় লাগবে।’ গত ৫ এপ্রিল জানিয়ে ছিলেন, ২১ মার্চ থেকে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ভর্তি ফারুক ২৩ মার্চ থেকে সম্পূর্ণ অচেতন অবস্থায় রয়েছেন। কোনো সাড়া দিচ্ছেন না। তবে ৭ এপ্রিল থেকে ফারুক সাড়া দিয়েছেন।


Leave a Reply

Your email address will not be published.