সিজারের সময় মাথা কেটে যাওয়ায় নবজাতকের মৃ’ত্যু


সংবাদ: বান্দরবান সদর হাসপাতালে সিজারের সময় মাথা কাটা পড়ে নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ উঠছে। তবে চিকিৎসকদের দাবি, বাচ্চাটি

মায়ের গর্ভেই মৃত ছিল। বুধবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, বান্দরবান পৌরসভার হাফেজঘোনা এলাকার বাসিন্দা পিঙ্কি আক্তারের মঙ্গলবার বিকেলে প্রসববেদনা

শুরু হলে তাকে বান্দরবান সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। হাসপাতালের চিকিৎসক সিজার করার পরামর্শ দেন। এতে তার পরিবারও সম্মতি দেয়। তবে সিজার অপারেশনকালে

নবজাতকের মাথা কপালের দিকে অনেকটা কেটে যায়। এ কারণে সদ্য ভূমিষ্ঠ শিশুটির মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি করে তার পরিবার। বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ হয়ে

হাসপাতালে জড়ো হয়। খবর পেয়ে হাসপাতালে উপস্থিত হন জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি, সিভিল সার্জন ডা. নিহার রঞ্জিত নন্দি, সদর থানার ওসি রফিকুল আলমসহ

প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। শিশুর বাবা রাজমিস্ত্রি মাহাবুব আলমের দাবি, চিকিৎসকের অসতর্কতায় আমার শিশু সন্তানের মৃত্যু হয়েছে। এটি দুর্ঘটনা নয়, হ’ত্যা। আমি সন্তান হত্যার বিচার চাই। তবে চিকিৎসকদের দাবি, মায়ের গর্ভে শিশুটি মৃত ছিল।

সিভিল সার্জন ডা. নিহার রঞ্জন নন্দি বলেন, মূলত মাকে বাঁচাতে গিয়ে শিশুটিকে জরায়ু থেকে বের করার সময় এ ঘটনা ঘটেছে। তারপরও তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। শিশুর ডেলিভারি অপারেশন করেছেন ডা. চিংম্রা সাং। জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি বলেন, শিশুর মৃত্যুর ঘটনাটি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রয়োজনে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা বিষয়টি তদন্ত করবেন।


Leave a Reply

Your email address will not be published.