আমি ৬৪ জেলার পুরুষের সাথে ঘুরেছি,গোপন তথ্য ফাঁ’স! (ভিডিও সহ)

আমি ৬৪ জেলার পুরুষের সাথে ঘুরেছি,গোপন তথ্য ফাঁ’স! (ভিডিও সহ)

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ইলিয়াস হোসেনের ফেসবুক পেজ থেকে কাকন সারোয়ার সাথে ফেসবুক লাইভে যুক্ত হয়েছিলেন ফারজানা ব্রাউনিয়া।

সেই লাইভে ফারজানা ব্রাউনিয়াকে জিজ্ঞেসা করা হয় বিবাহের পূর্বে জেনারেল সারাউদিকে নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় ভ্রমণে গেছেন, সারাউদি সাহেব বিনা অনুমতিতে বিয়ে করেছেন ইত্যাদি বেশে কিছু বিষয়ে অভিযোগ উঠে এসেছে।

কেনো আইএসপিয়ারের সবাই আপনাকে নিয়ে পড়েছে? এই প্রশ্নের জাবাবে ফারজানা ব্রাউনিয়া জানিয়েছেন, আমি একজন ভদ্র মানুষ, আমি একজন শ্রেষ্ঠ বাবা মায়ের সন্তান এবং আমি তো এমন কোন শব্দ ব্যবহার করবো না,

বা আমি শিখিনি খারাপ ব্যবহার করতে। আপনার এই প্রশ্নের উত্তর আমি দিতে পাবো না। আইএসপিয়ারের পেছনে যারা আছেন তারাই এই প্রশ্নের ব্যাখ্যা দিতে পারবেন। এছাড়াও ফারজানা ব্রাউনিয়া জানিয়েছেন সারাউদি যখন আমাকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন,

তখন সারাউদির পরিবার তার ছেলে মেয়ে সকলেই জানে বিষয়টি। এবং তারা আমাকে দেখিয়েছেও যে, ২০১৫ সালে তাদের ডিভোর্স হয়েছে সেই কাগজ। তখন আমি জানিয়েছি, আমি একজন সমাজ কর্মী আমি ভুল করতে পারবো না।

আমি আমার বাবা মায়ের সাথে কথা বলে দেখি, কারণ আমার ৩ টি সন্তান এবং ৩ টি সন্তানকে আমি একক ভাবে একক প্রচেষ্টায় একটি সুন্দর জীবন দিয়ে বড় করছি। তারপর, সারাউদি সাহেব বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে আমার বাবার কাছে যায়, তখন আমার বাবা বললেন তুমি তোমার মুরব্বিদের নিয়ে এসো। সেই সময় আমার বিয়ের সিদ্ধান্ত হয় এবং পারিবারিক ভাবে এবং আনুষ্ঠানিক ভাবে। আমার বিয়ের সময় সারাউদি সাহেব একটি সেরোয়ানি পড়ে এবং আমি একটা লাল শাড়ি পড়ি যে শাড়িটি ছিল আমার মায়ের শাড়ি। বিয়ের পর আমার ছেলে পরিকল্পনা করেন যে বাপি একটা জামা পরবে এবং তুমি একটা সাদা শাড়ি পড়বে পরে একটা ছবি তুলবো। ছবি তোলার জন্য আমরা সাভার গার্লস ক্লাবে যেতে পারি কিনা। সকলের কাছে সব কিছু নরমাল ছিল। কিন্তু আমার সেখানে পৌঁছানোর পর আমদের বলা হয় যে আপনারা এখনি এখান থেকে চলে যান। যাস্ট একটি ছবি তোলা ছিল তারপরেও তারা কেনো এমন করলো আমি জানি না। ফারজানা ব্রাউনিয়া জানিয়েছেন, আমি নিজের কানে শুনেছি সারাউদি তার সেনাপ্রধান সাথে বিয়ের বিষয়ে কথা বলেছিলেন। ফারজানা ব্রাউনিয়া বলেছেন আমি লিগালি বলতে পারি, সারাউদি সাহেব এবং আমার বিয়েটা বৈধ। এখন আপনি যদি একটা বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নেন আপনার পরিবার থেকে, আপনি কি মেয়ে দেখতে যাবেন না? এখন আমি কি বলবো আপনি ৬ টি মেয়ে দেখেছেন সুতরাং আপনি অনেক মেয়ের সাথে ঘুরেছেন তাই আপনি ব্যাভিচারি। একটা ছেলের সাথে একটা মেয়ের বিয়ে হতে হলে তো তাদের সাথে কথা বলার প্রয়োজন আছে। আমি ৬৪ জেলা ঘুরেছি কোন না কোন পুরুষ আমার সাথে ছিল, এখন আপনি যদি বলেন আপনি ৬৪ টা জেলায় পুরুষদের সাথে ঘুরেছেন তাহলে তো সেটা খুব দুঃখ জনক হবে।

সেই ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুন


Leave a Reply

Your email address will not be published.