সমালোচনার মুখে আগের স্ট্যাটাসের ব্যাখ্যা দিলেন বিএনপি নেতা

সমালোচনার মুখে আগের স্ট্যাটাসের ব্যাখ্যা দিলেন বিএনপি নেতা

সারাদেশ: সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতকে নিয়ে যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ‘নেতিবাচক’ মন্তব্য করে তোপের মুখে পড়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির।

সমালোচনার মুখে শনিবার (৩০ এপ্রিল) বিকালে তিনি ফেসবুকে আরেকটি স্ট্যাটাসে আগের দেওয়া স্ট্যাটাসের স্বপক্ষে ব্যাখ্যা দিয়েছেন। বিকাল ৪টার দিকে দেওয়া স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছেন,

‘সদ্যপ্রয়াত সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত সম্পর্কে আমার শোক বাণীটি হয়তো কারও কারও মনঃপূত হয়নি। একটু মনোযোগ দিয়ে পড়লেই দেখবেন- শোক বাণীটির মধ্যে তার প্রতি

শ্রদ্ধা জানান হয়েছে। তার রুহের মাগফেরাত কামনা করা হয়েছে। অর্থনৈতিক পর্যবেক্ষণ প্রাতিষ্ঠানিক, ব্যক্তিগত নয়।’ ‘জনাব মুহিত আমার চাচার সহপাঠী ছিলেন। আমরা পারিবারিক পর্যায়ে যখন

তার সম্বন্ধে আলোচনা করি বা করতাম তখন মুহিত চাচাই সম্বোধন করি। তার সঙ্গে আমাদের পরিবারের দীর্ঘ দিনের সম্পর্ক, সে কারণে তার কাছে প্রত্যাশাও ছিল বেশি। এটিতো কোনও অমূলক কথা নয়,

যে সরকারের তিনি অংশ ছিলেন সেই সরকারের সম্পর্কে আমার উল্লেখিত কথাগুলো দেশে ও বিদেশে ব্যক্তি ও রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে বহুবার উচ্চারিত হয়েছে। এমনকি সাম্প্রতিককালেও উচ্চারিত হয়েছে।’
বিএনপির এই নেতা তার স্ট্যাটাসে আরও উল্লেখ করেছেন, ‘তার (মুহিত) অর্থনৈতিক নীতি শুধু আমার না, অনেক দেশ বরেণ্য অর্থনীতিবিদের মনঃপূত হয়নি। আর যে দুর্নীতিগ্রস্ত প্রকল্পের কথা বলা হচ্ছে, সেগুলো কোনও ব্যক্তি দুর্নীতি না, প্রাতিষ্ঠানিক দুর্নীতি। পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পসহ অনেকগুলো প্রকল্প সেই সময়ে গৃহীত হয়েছে যেগুলোর উপযোগিতা এবং প্রকল্পের মূল্যমান নিয়ে গভীর প্রশ্ন রয়েছে। কিন্তু কেউই জনাব মুহিতের ব্যক্তিগত সততা নিয়ে প্রশ্ন নিয়ে তোলেনি এবং সেটি তোলার অবকাশ আছে বলেও আমার মনে হয় না। তিনি একজন দার্শনিক স্বভাবের হাসি-খুশি মানুষ ছিলেন। এটিও সত্য তার অনুসৃত অর্থনৈতিক নীতি প্রশ্নবিদ্ধ হলেও এত বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারের অধিকারী একজন মুহিত সাহেব খুঁজে পাওয়া যাবে না। আল্লাহ তাকে মাগফেরাত দান করুন।’

শুক্রবার রাতে দেওয়া স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছেন, ‘জনাব আবুল মাল আব্দুল মুহিত পৃথিবী ছেড়ে চলে গেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করছি। আল্লাহ তাকে বেহেশত নসিব করুন। তার শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি জানাই গভীর সমবেদনা। জনাব মুহিত ছিলেন কলেজ জীবনে আমার চাচার সহপাঠী। দীর্ঘ সময় ধরে তিনি ছিলেন ভোটারবিহীন জবর-দখলকারী একটি সরকারের অংশ। যে সরকার ইলিয়াস আলীসহ সিলেটের কমপক্ষে চার জন এবং সারাদেশের কয়েকশ গুমের জন্য অভিযুক্ত। অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে নিয়োজিত থাকাকালে তার অনুসৃত ভুল অর্থনৈতিক নীতি এবং একের পর এক দুর্নীতিগ্রস্ত প্রকল্প ও ক্রয় প্রস্তাব পাশের দায় এই জাতিকে পরিশোধ করতে হবে বহু বছর ধরে। তার স্মৃতির সঙ্গে এই পীড়াদায়ক বাস্তবতা জড়িয়ে থাকবে বহুদিন। তার মাগফিরাতের জন্য দোয়া করি।’

তার এই স্ট্যাটাসের প্রতিক্রিয়ায় সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আবদুর রহমান জামিল লিখেছেন, ‘মুক্তাদির সাহেব! ভালো পরিবারে জন্ম আপনার। কিন্তু ভাবতে অবাক লাগে, ক্ষমতার লোভ এতটাই যে, একজন মৃত্যুবরণকারী ব্যক্তির বিষয়ে এমন মন্তব্য! সত্যিই ভাবতে অবাক লাগে, কতটা নিচু মনের মানুষ হলে এমনটা বলা যায়?’ সিলেট জেলা যুবলীগ নেতা সাজলু লস্কর মুক্তাদিরের উদ্দেশে লিখেছেন, ‘আপনি জাস্ট একজন ছোট লোক। ছিঃ।’এদিকে এই স্ট্যাটাসের প্রতিবাদে বিবৃতি দিয়েছে সিলেট মহানগর যুবলীগ। একইসঙ্গে ফেসবুক পোস্ট প্রত্যাহার করে মুক্তাদিরকে সিলেট ও দেশবাসীর কাছে ক্ষমা চাইতে বলা হয়েছে। ক্ষমা না চাইলে তাকে গণপিটুনির হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে।


Leave a Reply

Your email address will not be published.