সালামি দেওয়ার কেউ নেই, নেওয়ারও কেউ নেই: অপি করিম


ঈদের অন্যতম অনুসঙ্গ হচ্ছে ‘সালামি’। বড়রা ছোটদের এই সালামি দেন, যা ঈদের আনন্দ বহুগুণ বাড়িয়ে দেয়। ছোটবেলায় ঈদে সালামি পাননি এমন মানুষ কমই পাওয়া যাবে।

জনপ্রিয় অভিনেত্রী অপি করিমও সালামি পেয়েছেন। তবে বড় হয়ে যাওয়ার পর সেই সালামি দেওয়া মানুষের সংখ্যা কমে গেছে। এমনকি তিনি সালামি দেবেন তেমন মানুষও পাননা।

অপি করিম বলেন, ছোট ছিলাম বলে সালামি পেতাম দশ টাকা। টাকার অঙ্ক কম দেখে মনে হতো কবে বড় হবো। কোন দিন ১০০ টাকা আমাকে দেবে! এখন তো দেওয়ার কেউ নেই,

কাউকে যে সালামি দেব তাদেরও খুঁজে পাই না। সবাই এখন ব্যস্ত। কেউ কেউ থাকেন দেশের বাইরে। ভাইবোনের হৃদ্যতা খুব মিস করি। তাইতো ছোটবেলার সুখস্মৃতি এখন দুঃখ দেয়। এ বছর বাবা ছাড়া ঈদ!

গত বছর বাবা মারা গেছেন অপি করিমের। ঈদে বাবাকে খুবই মনে পড়ছে তার। অপি বলেন, ”এবছর ঈদ আমার জন্য একটু কষ্টের। কারণ, গত বছর বাবা আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন। বাবার মুখের ‘মারে ঈদ মোবারক’- এই ডাকটি আর শুনতে পাব না।”

ঈদে বাড়ি ফেরার স্মৃতিও রয়েছে অপি করিমের। তিনি বলেন ‘ঈদের আনন্দ বহুগুণে বেড়ে যায় যখন আমরা বাড়ি ফিরি। অধীর অপেক্ষায় বসে থাকা প্রিয়জনের মুখগুলো দেখি। আগে প্রতি বছরই যে কোনো একটি ঈদ কুমিল্লায় করতাম।

সেখানে নানি বাড়ি। সব ভাইবোন আসায় মিলনমেলা হতো। পুরান ঢাকায় খালাতো মামাতো ভাইবোন মিলে একটি ঈদ উদযাপন করতাম। আমাদের টার্গেট থাকত সবার সালামির টাকা জমিয়ে তিন দিনের দিন চায়নিজ খাব। তখন ঢাকা শহরে হাতেগোনা কয়েকটি চায়নিজ রেস্টুরেন্ট ছিল। ‘


Leave a Reply

Your email address will not be published.