দলের ‘সংস্কার-চিন্তা’ বিদেশিদের জানাবে বিএনপি


রাজনীতি: দলীয়ভাবে ‘নির্বাচনের পর জাতীয় সরকার’ গঠনের যে প্রাথমিক প্রতিশ্রুতি শীর্ষ নেতৃত্বের পক্ষ থেকে সামনে এসেছে,

সেই প্রতিশ্রুতিকে কার্যকরভাবে উপস্থাপন করার পক্ষে বিএনপি। বিশেষত, দেশের নির্বাচন ও রাজনীতিতে যে কয়টি প্রভাবশালী রাষ্ট্রের ভূমিকা দেখা যায়— সেসব দেশের কাছে পরিবর্তনের প্রতিশ্রুতি অর্থপূর্ণভাবে পৌঁছাতে চান দলটির নীতিনির্ধারকরা।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির কয়েকজন প্রভাবশালী সদস্যের সঙ্গে আলাপকালে তারা জানিয়েছেন, ইতোমধ্যে ঢাকায় জার্মান ও তুরস্কের রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। দৃশ্যত, এসব বৈঠককে ‘রুটিন আলোচনা’ হিসেবে বলা হলেও দলীয়ভাবে গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করা হচ্ছে।

স্থায়ী কমিটির একাধিক সদস্যের দাবি, বহির্বিশ্বের প্রভাবশালী দেশগুলোর রাষ্ট্রদূতদের বিএনপির সঙ্গে বৈঠকের বিষয়টি হালকাভাবে নেওয়া হচ্ছে না। ইতোমধ্যে বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্বের পক্ষ থেকে ‘নির্বাচনের পর গণতান্ত্রিক আন্দোলনে যুক্ত দলগুলোর সমন্বয়ে যে জাতীয় সরকার’ গঠনের প্রস্তাব এসেছে—তাতে কয়েকটি রাষ্ট্র দারুণভাবে আগ্রহী হয়েছে।

বিএনপির প্রভাবশালী দুই নেতা জানান, আসলেই বিএনপি কোনও পরিবর্তন করবে কিনা, দলের ওপর যেসব অভিযোগ বিগত একযুগের বেশি সময় ধরে আলোচিত, সেসব অবস্থান থেকে সরে আসবে কিনা— এ বিষয়গুলোতে পরিষ্কার বার্তা ও প্রতিশ্রুতি চান তারা।

দলের কয়েকজন দায়িত্বশীল আলাপকালে জানান, আন্দোলন ও নির্বাচন— এই দুই বিষয়কে কেন্দ্র করে পরিকল্পনা গুছিয়ে আনার কাজ করছে বিএনপি। আন্দোলনের ধরন ও প্রক্রিয়া নিয়ে দলীয়ভাবে সর্বসম্মত সিদ্ধান্তে উপনীত হতে পারেননি দলটির নীতিনির্ধারকরা। তবে নির্বাচন ও নির্বাচন পরবর্তী কার্যক্রম নিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। বিএনপির বিভিন্ন স্তরে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ‘নির্বাচনের পর জাতীয় সরকার’ এর যে প্রতিশ্রুতি এসেছে, এখন সেই প্রতিশ্রুতিকে বিস্তারিত ঢেলে সাজানোর কাজ শুরু হয়েছে। বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় বুকলেট আকারে প্রকাশের কাজ চলছে বিভিন্ন মাধ্যমে। এরসঙ্গে যুক্ত হয়েছেন সমাজের নানাস্তরের বিশেষজ্ঞরা। বিএনপির প্রভাবশালী একজন দায়িত্বশীল জানাচ্ছেন, আন্দোলন ও নির্বাচন এবং নির্বাচন পরবর্তী কৌশল নির্ধারণ করতে গিয়ে বেশকয়েকটি সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছে বিএনপি। তিনি জানান, দলের তৃণমূল থেকে আন্দোলনের চাপ আছে। আবার আরেকটি অংশ চায়, যেভাবেই হোক যেকোনও পদ্ধতিতে সরকারের পরিবর্তন।
নেতারা মনে করেন, গত ১৫ বছর ধরে ক্ষমতার বাইরে থেকে বিগত দশম, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পৃথক কৌশল গ্রহণ করলেও কোনও ফলাফল আসেনি। সেক্ষেত্রে আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বিষয়টি নীতিনির্ধারকদের কাছে অনেক বেশি চ্যালেঞ্জের।

দায়িত্বশীলরা বলছেন, বিএনপিতে সংসদীয় আসন অনুযায়ী নেতার সংখ্যা অনেক। একেকটি আসনে দুই বা ততোধিক সদস্য থাকায় দলের বড় অংশের নেতারা চান— আসনভিত্তিক মেজরিটি বজায় রাখা। আর এই কারণেই ছোট ছোট রাজনৈতিক শক্তিগুলো বিএনপির ওপর চাপ তৈরি করতে প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। দলের একজন দায়িত্বশীল বলেন, যদি মেজরিটির কৌশলে বিএনপি হাঁটে, সেক্ষেত্রে দলটির অনুসারী ও অন্যান্য সমমনা দলগুলোর আশঙ্কা— পরিবর্তনের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হলেও আদতে কোনও পরিবর্তনই আসবে না। এ বিষয়টি দলটির নীতিনির্ধারকরা উপলব্ধি করছেন বলে জানান এই দায়িত্বশীল। এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেন, ‘নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের পর যদি সংখ্যাগরিষ্ঠতা আসে, তাহলে গণতান্ত্রিক আন্দোলনে যুক্ত সবাইকে নিয়েই রাষ্ট্রকে রিফর্ম করার কাজ করতে হবে। ইতোমধ্যে বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব থেকে এ বিষয়ে বলা হয়েছে। আমরা এখন বিস্তারিত কাজ করছি।’ কী কী বিষয়ে রিফর্ম করার পরিকল্পনা করছে বিএনপি, এমন প্রশ্নের জবাবে সাবেক প্রতিমন্ত্রী ইকবাল হাসান মাহমুদ উল্লেখ করেন, রাষ্ট্রীয় কোনও প্রতিষ্ঠানই আর ঠিক নেই। নির্বাচন প্রক্রিয়া ধ্বংস হয়ে গেছে, এটাকে ঠিক করতে হবে। ‘নির্বাচনের স্থায়ী পদ্ধতি, বিচার বিভাগের পূর্ণ স্বাধীনতা, দলীয় প্রশাসন ঠিক করা, দেশের সর্বগ্রাহ্য ইতিহাস ফিরিয়ে আনা, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ নানা বিষয়েই বিস্তারিত চিন্তা করছে বিএনপি।’ যোগ করেন ইকবাল হাসান মাহমুদ। দলীয় সূত্রগুলো বলছে, ‘নির্বাচনের পর জাতীয় সরকার’ গঠনের রাজনৈতিক প্রস্তাব প্রণয়নে ২০১৭ সালের ১০ মে ঘোষিত বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ‘ভিশন-২০৩০’ প্রস্তাবকে সামনে রাখা হয়েছে। রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতায় ভারসাম্য, সংসদে দ্বিকক্ষ প্রতিষ্ঠা, ৭০ অনুচ্ছেদ সংশোধনসহ গুরুত্বপূর্ণ কিছু রিফর্মের প্রসঙ্গগুলোও নতুন প্রস্তাবে যুক্ত হবে। বিএনপির স্থায়ী কমিটির অন্যতম একজন সদস্য জানান, আগামী ৯ মে স্থায়ী কমিটির নিয়মিত বৈঠক হতে পারে। ওই বৈঠকেই নতুন রাজনৈতিক কৌশল ও প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা হবে। নপাশাপাশি বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে মতবিনিময়ের দিনক্ষণও চূড়ান্ত করা হতে পারে।


Leave a Reply

Your email address will not be published.