ডাকাত সন্দেহে র‍্যাবের উপর হামলার ঘটনায় আটক…

ডাকাত সন্দেহে র‍্যাবের উপর হামলার ঘটনায় আটক…

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের ডাকাত ঘোষণা দিয়ে সাদা পোশাকে থাকা র‍্যাব সদস্যদের উপর হামলায় সন্দেহভাজন ১০ জনকে আটক করা হয়েছে।

বুধবার রাত থেকে বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। এখনো এ অভিযান অব্যাহত রয়েছে। র‍্যাবের দাবি, মাদকের বিরুদ্ধে গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে

পরিকল্পিতভাবে ডাকাত গুজব রটিয়ে র‍্যাব সদস্যদের উপর হামলা চালায় মাদক ব্যবসায়ীরা। গণপিটুনির শিকার হয়ে আহত দুই র‍্যাব সদস্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের অধীনে পর্যবেক্ষণে রয়েছেন। ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন রয়েছেন তারা।

এদিকে র‍্যাব সদস্যদের উপর হামলার ঘটনার পর গ্রেপ্তার অভিযান শুরু হলে ঘটনাস্থল ও এর আশেপাশের এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। সেখানে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। বৃহস্পতিবার সকালে র‍্যাব-পুলিশের উপস্থিতি দেখা গেছে।

র‍্যাব-৭ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল এম এ ইউসুফ সমকালকে বলেন, র‍্যাবের গোয়েন্দা দল সাদা পোশাকে তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে পরিকল্পিতভাবে হামলা চালিয়েছে মাদক ব্যবসায়ীরা। হামলায় জড়িত সন্দেহে ১০ জনকে আটক করা হয়েছে। প্রকৃত আসামি শনাক্তে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ ও যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

আহত র‍্যাব সদস্যদের শারিরীক অবস্থা জানিয়ে তিনি বলেন, চিকিৎসকরা তাদের আইসিইউতে পর্যবেক্ষণে রেখেছেন। তবে ২৪ ঘণ্টার আগে তাদের শারিরীক অবস্থা বলা যাচ্ছে না। এর আগে বুধবার সন্ধ্যায় মিরসরাইয়ের বারইয়ারহাট পৌর বাজারের ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ‘ডাকাত’ সন্দেহে একটি প্রাইভেটকারে সাদা পোশাকে থাকা র‌্যাব সদস্যদের উপর হামলা চালায় দুষ্কৃতিকারীরা। এতে তিনজন আহত হন। এদের মধ্যে শামীম ও মোখলেস নামে দুইজন র‍্যাব সদস্য রয়েছে।

হামলার খবর পেয়ে পুলিশ ও র‍্যাব সদস্যরা তাদের উদ্ধার করে ফেনী জেলা হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে হেলিকপ্টারে ঢাকার সিএমএইচে নিয়ে যাওয়া হয়। এদিন রাতে র‍্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়, র‍্যাব-৭ এর একটি গোয়েন্দা দল সাদা পোশাকে মাদকের বিরুদ্ধে তথ্য সংগ্রহের জন্য চট্টগ্রামের বারইরহাট এলাকায় যায়। কিন্তু র‍্যাব সদস্যদের উপস্থিতি টের পেয়ে দুষ্কৃতিকারী মাদক ব্যবসায়ী পরিকল্পিতভাবে

ডাকাত ডাকাত বলে চিৎকার করে র‍্যাব সদস্যদের আক্রমণ করে।এ ঘটনায় পর থেকে বারইয়ারহাট পৌর বাজারসহ আশপাশের এলাকায় পুলিশ ও র‌্যাবের গাড়ি টহল দিচ্ছে। চলছে গ্রেপ্তার অভিযান। এতে লাকার মানুষের মধ্যে গ্রেপ্তার আতঙ্ক বিরাজ করছে। বৃহস্পতিবার বাজারের ঘটনাস্থল এলাকায় ও আশপাশের কয়েকটি দোকান খুলেনি। এ ছাড়া অন্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোতে স্বাভাবিক কার্যক্রম চলছে।

বারইয়ারহাট পৌর বাজারের সাধারণ সম্পাদক হেদায়েত উল্যা জানান, ঘটনার পর থেকে বাজারের ব্যবসায়ীদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। এলাকা থেকে র‌্যাব বেশ কয়েকজনকে আটক করেছে বলে শুনেছেন তিনি। জোরারগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) খায়রুল আলম জানান, র‌্যাবের উপর দুষ্কৃতিকারীদের হামলার ঘটনায় র‌্যাবের পক্ষ থেকে থানায় এখনো কোনো অভিযোগ দেওয়া হয়নি। ঘটনার সাথে জড়িত কাউকে আটকের বিষয়েও র‌্যাবের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানানো হয়নি।


Leave a Reply

Your email address will not be published.