কারণ দর্শানোর নোটিশ পেলেন আ.লীগের দুইশত নেতা

কারণ দর্শানোর নোটিশ পেলেন আ.লীগের দুইশত নেতা

রাজনীতি: গাজীপুর মহানগরীর দুই শতাধিক নেতাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে মহানগর আওয়ামী লীগ।
গতকাল শনিবার থেকে এ নোটিশ পাঠানো শুরু হয়েছে বলে জানা গেছে।

গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমকে পদ থেকে বহিষ্কারের পর তাঁর সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে এ নোটিশ পাঠানো হয়।

এই তালিকায় বর্ষীয়ান নেতা ও গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের ১ নম্বর সহসভাপতি কাজী আলিমুদ্দিন বুদ্দিন ও আব্দুর রউফ নয়নও রয়েছেন। তালিকায় রয়েছেন সিটি করপোরেশনের একাধিক সিটি কাউন্সিলর।

এ প্রসঙ্গে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আতাউল্লাহ মণ্ডল বলেছেন, নোটিশ দেওয়া শুরু হয়েছে। মোট সংখ্যাটা এখনো বলা যাবে না। ২-৩ দিন পর সঠিক সংখ্যা বলা যাবে।

মহানগর আওয়ামী লীগের ৩১ নম্বর ওয়ার্ডের আহ্বায়ক নুরুল ইসলাম তিতুমীর জানান, দুই শতাধিক নেতাকে বহিষ্কার করার জন্য নোটিশ পাঠানো শুরু হয়েছে। নোটিশপ্রাপ্তদের মধ্যে তিনিও আছেন উল্লেখ করে বলেছেন, ‘গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে এই নোটিশ দেওয়া হয়েছে।’

ইতিমধ্যে নোটিশ পাওয়া নেতাদের মধ্যে আছেন জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান মোকসেদ আলম, মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক কাউন্সিলর রফিকুল ইসলাম, মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য কাউন্সিলর আজিজুর রহমান শিরিশ, সদস্য রজব আলী, আব্দুর রশিদ, ক্রীড়া সম্পাদক আসাদুজ্জামান তরুণ, দপ্তর সম্পাদক মনির হোসেন মিয়া, সহ দপ্তর সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম, ২৮ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্যসচিব জাকির হোসেন,

মহানগর আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক আক্কাছ আলী, সদস্য আব্দুর রহমান, শিক্ষা ও বিজ্ঞান বিষয়ক সম্পাদক প্রফেসর আসকর আলী, সদস্য গিয়াস উদ্দিন মোল্লাহ প্রমুখ। এ ছাড়া নোটিশের তালিকায় বিভিন্ন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক, সদস্যসচিব এবং সদস্যরা রয়েছেন। এদিকে আসন্ন গাজীপুর সিটি নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের বেশ কয়েকজন প্রার্থী মাঠে নেমেছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের জরিপও শুরু হয়ে গেছে।

মাঠে ময়দানে মেয়র পদে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হিসেবে যাদের প্রচারণা আছে, তাঁদের মধ্যে অন্যতম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ খান, মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক কামরুল আহসান সরকার রাসেল, কাউন্সিলর আব্দুল্লাহ আল মামুন মণ্ডল, মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক সাইফুল ইসলাম প্রমুখ। তবে নির্দোষ প্রমাণিত হয়ে পদ ফিরে পেলে নৌকা প্রতীক চাইবেন বলে জানিয়েছেন জাহাঙ্গীর আলম। আগামী নির্বাচনের আগে ফয়সালা না হলে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে লড়তে পারেন বলে ঘোষণাও দিয়েছেন তিনি।

উল্লেখ গত বছরের ১৯ নভেম্বর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমকে দলীয় পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়। কয়েক দিন পর গাজীপুরের মেয়র পদ থেকেও সাময়িক বহিষ্কার করা হয় তাঁকে। বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগে তাঁর বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। একই সঙ্গে বিষয়গুলো তদন্তের জন্য তদন্ত কমিটি গঠন করে সরকার। ঘটনার ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় মামলা হয়। মামলাগুলো বর্তমানে তদন্তাধীন রয়েছে। সরকার গঠিত তদন্ত কমিটিও এখন পর্যন্ত প্রতিবেদন দেয়নি।


Leave a Reply

Your email address will not be published.