পুলিশের কর্মকাণ্ড নিয়ে সংসদে যা বললেন বিরোধী দলের এমপিরা

পুলিশের কর্মকাণ্ড নিয়ে সংসদে যা বললেন বিরোধী দলের এমপিরা

পুলিশ সদস্যদের কর্মকাণ্ডের ব্যাপক সমালোচনা করে জাতীয় সংসদে বিরোধী দলের এমপিরা বলেন, ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে সরকার পুলিশকে দলীয় বাহিনীতে পরিণত করেছে।

তারা বিচারবহির্ভূত হত্যা, গুম, নির্যাতন আর সাধারণ মানুষকে হয়রানি করছে। সোমবার (১৩ জুন) জাতীয় সংসদে ২০২১–২২ সালের সম্পূরক বাজেটের ওপর

ছাঁটাই প্রস্তাবের আলোচনায় অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন বিরোধী দলের সংসদ সদস্যরা। এ সময় বিএনপির সংসদ সদস্য রুমিন ফারহানা বলেন, এ সরকারের আমলে পুলিশকে দলীয় বাহিনীতে পরিণত করা হয়েছে।

পুলিশের কাছে গেলে নতুন সমস্যায় পড়তে হয় কি না, এ আশঙ্কায় মহাবিপদে পড়লেও মানুষ এখন পুলিশের কাছে যেতে চায় না। রুমিন ফারহানা আরও বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বিচারবহির্ভূত হত্যা গুম তো করেই,

হেফাজতে নিয়ে নির্যাতন নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার। এর প্রতিকার চাইতে গেলেও নির্যাতন নেমে আসে। বিএনপির আরেক সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ বলেন, বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলার বাদী ও সাক্ষী হয় পুলিশ,

এতে প্রমাণিত হয় দেশের বিচার ব্যবস্থা কতটা নাজুক অবস্থায় রয়েছে।পুলিশ বহিনীর বিরুদ্ধে বিচারবহির্ভূত হত্যা, গুমের অভিযোগ, মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ অসত্য নয়। সরকারি দল চায়, পুলিশ তাদের কথামতো চলবে। এ ধারা থেকে বের হয়ে না আসতে পারলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে নেয়া সম্ভব হবে না।

তিনি আরও বলেন, তার এলাকায় সম্প্রতি র‌্যাবের ডিজির সফর উপলক্ষ্যে নিরাপত্তার নামে বন্ধ করে দেয়া হয় সব সড়ক । শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে পুলিশ মোতায়েন করা হয়। সেখান থেকে কোনো শিক্ষার্থীকে বের হতে দেয়া হয়নি।

এ সময় নির্বাচন কমিশনের সমালোচনা করে বলেন, নির্বাচন কমিশন নামে যে প্রতিষ্ঠানটি আছে, তা বিলুপ্ত করে পুলিশ বাহিনীর হাতে ন্যস্ত করে দেন। কী প্রয়োজন, খামাখা! প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত রূপকল্প ২০৪১ পর্যন্ত যত দিন থাকবেন, সেই পর্যন্ত নির্বাচন কমিশনের কী দরকার? পুলিশের আইজিপিকে প্রধান করে তাদের অধীনে নির্বাচন দেন। আইন করেন সংসদে। সেভাবে নির্বাচন হবে।

জাতীয় পার্টির শামীম হায়দার পাটোয়ারী বলেন, আজকে কোনো পুলিশ অন্যায় করলে সব পুলিশ একত্রিত হয়ে তাকে সাপোর্ট করে। এতে অসহায় হয়ে পড়ে জুডিশিয়ারি। জনগণের অধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে, কিন্তু তাদের যাওয়ার জায়গা নেই। আজকে পুলিশের কেউ অন্যায় করলে নিশ্চুপ থাকে মানবাধিকার কমিশন । পুলিশকে বুঝতে হবে, ‘পি ফর পোলাইট’। আমাদের পুলিশ অনেক ক্ষেত্রে জনগণকে তাদের চাকর মনে করেন। পুলিশের দায়বদ্ধতা প্রয়োজন। পুলিশ মনে করে তাদের হাতে অস্ত্র থাকায় তারা সীমাহীন ক্ষমতার মালিক।

গণফোরামের সংসদ সদস্য মোকাব্বির খান বলেন, কনস্টেবল থেকে শুরু করে উচ্চ পর্যায়ের পুলিশ কর্মকর্তারাও নানা অপরাধের সাথে জড়িত।তাদের এ প্রবণতা বেড়ে গেছে। কারণ, যেসব পুলিশ অপরাধ করছে, তাদের শাস্তি হচ্ছে না। যা গোটা পুলিশ বাহিনীকে প্রশ্নবিদ্ধ করে তুলেছে। এ সময় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, পুলিশে কেউ খারাপ নেই, এটা কেউ হলফ করে বলতে পারবে না।


Leave a Reply

Your email address will not be published.