কষ্ট আমি নিলাম সুখ তোমাকে দিলাম

কষ্ট আমি নিলাম সুখ তোমাকে দিলাম

চিত্রনায়িকা মৌসুমীকে হয়রানির অভিযোগে চিত্রনায়ক জায়েদ খানকে চড় মেরেছেন চিত্রনায়ক ওমর সানী। গত এক সপ্তাহে মিডিয়ায় সেই ঘটনা নিয়ে আলোচনার শেষ ছিল না।

সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সেই বিষয়টি নিয়ে এখন চুপ তিন তারকাই। তবে ওই ঘটনাকে ঘিরে ওমর সানী-মৌসুমীর সম্পর্কে ভাঙনের সুর বেজেছে এমন খবরও ছড়িয়ে পড়েছিল চারদিকে।

এই সংসার ভাঙন ধরানোর নেপথ্যে চিত্রনায়ক জায়েদ খানকে দায়ী করেন ওমর সানী। এরপর জায়েদের পক্ষ নিয়ে মৌসুমীর পাল্টা বক্তব্যে সেই গুঞ্জন আরও জোরাল হয়।

এরপর গণমাধ্যমে মুখ খুলেন সানি-মৌসুমীর পুত্র ফারদিন। তিনি দাবি করেন, তার বাবার অভিযোগ সত্য। জায়েদ খান তার মাকে হয়রানি করেন। শুধু তাই নয়, তাদের ব্যবসার মধ্যেও ঝামেলা করেন জায়েদ খান। তবে

এসব বিতর্ক ও আলোচনা ভুলে আবারও এক হলেন সানি-মৌসুমী। জায়েদ ইস্যুতে তাদের ২৭ বছরের সংসার ভাঙার যে গুঞ্জন উঠেছিল তা এখানেই সমাপ্তি ঘটছে। তবে এই দূরত্ব ঘুচাতে মনে হয় মানসিকভাবে এখনও বেশ বেগ পেতে হচ্ছে মৌসুমীর।

এমনটাই অনুমান করা যায় অভিনেত্রীর সোশ্যাল মিডিয়ার পোস্ট দেখে। শুক্রবার রাতে ইনস্টাগ্রামে এলো চুলের একটি ছবি পোস্ট করেন মৌসুমী। ছবির ক্যাপশনে তিনি লেখেন, ‘বৃষ্টিতে ভিজে গেলাম, বৃষ্টিও বলে লিলি ফ্লাওয়ারস তোমার জন্য।

ভিজে ভিজে কিছু কথা মনে হলো, কোনো একসময় বলব যদি বেঁচে থাকি ইনশাআল্লাহ। খুব ট্রাই (চেষ্টা) করছি শক্ত থাকতে, অভিমানী মন বড় দুর্বল। নিজের দুর্বলতা অন্য কারো ওপর চাপিয়ে কেউ ভালো থাকতে পারে না। কষ্ট আমি নিলাম সুখ তোমাকে দিলাম।’

বৃহস্পতিবার রাতে মৌসুমী তার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে আরও একটি পোস্ট দিয়েছিলেন। মৌসুমী তার স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘কঠিন বাস্তবতা অতিক্রম মানে হচ্ছে স্বপ্নকে ছুঁয়ে দেওয়া।’ স্ট্যাটাসটি পড়ে সবার ধারণা হতেই পারে যে মৌসুমী কঠিন একটা সময় অতিক্রম করছেন। তবে ‘স্বপ্নকে ছুঁয়ে দেওয়া’ বিষয়টা কি, সেটা এখনও রহস্য রয়ে আছে।

এর আগে গত ১০ জুন রাতে অভিনেতা ডিপজলের ছেলের বিয়েতে অভিনেতা জায়েদ খানকে চড় মারেন বলে দাবি করেন ওমর সানি। তবে ওমর সানীর এসব অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে মন্তব্য করেন স্ত্রী মৌসুমী। মৌসুমী স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন জায়েদ খান তাকে ডিস্টার্ব তো নয়ই, উল্টো সম্মান করেন। আর তিনিও জায়েদকে স্নেহ করেন। কিন্তু মৌসুমীর এই বক্তব্যকে কার্যত নাকচ করে দিয়ে ওমর সানী ফেসবুক লাইভে এসে তার বক্তব্যে অটল থাকার কথা জানান। অর্থাৎ জায়েদ যে মৌসুমীকে ডিস্টার্ব করেন সে কথাতেই অটল থাকেন। একই সঙ্গে এ-ও বলেন যে তার ছেলের কাছে ব্যাপক প্রমাণ রয়েছে জায়েদের ডিস্টার্ব করার বিষয়ে।


Leave a Reply

Your email address will not be published.