শহীদ মিনারের বোমাটি নিষ্ক্রিয় করেছে র‍্যাব, যা লেখাছিল গায়ে

শহীদ মিনারের বোমাটি নিষ্ক্রিয় করেছে র‍্যাব, যা লেখাছিল গায়ে

নাটোর সদর উপজেলার লক্ষ্মীপুর খোলাবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের সামনে হয়বতপুর শহীদ মিনারের সামনে একটি বোমাসদৃশ বস্তু রাখা হয়।

সংবাদ পেয়ে পুলিশ ও র‌্যাব ঘটনাস্থলে ঘিরে রাখে। নাটোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তারেক জুবায়ের জানিয়েছেন, র‌্যাব-৫-এর একটি বোম্ব ডিসপোজাল টিম বোমাসদৃশ বস্তুটিকে ডিঅ্যাক্টিভেট করার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

পরে বেলা সাড়ে ১২টা নাগাদ র‌্যাবের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিটের সদস্যরা বোমাটি উদ্ধার করে একটি ইটভাটায় নিয়ে যায়। সেখানে মাটিতে গর্ত করে বোমাটির বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। লক্ষ্মীপুর খোলাবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান কালু জানান,

রাত ১২টার দিকে বাজার পাহারাদার শহীদ মিনারে বোমাসদৃশ বস্তুটির পাশে আলো জ্বলতে দেখেন। তার সন্দেহ হলে বিষয়টি তিনি হাইওয়ে পুলিশকে জানান।

হাইওয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাল রঙের বোমাসদৃশ বস্তুর গায়ে একটি কাগজে লেখা দেখতে পায় ‘আমি একা মরব না, এই এলাকার লোকজনকে সঙ্গে নিয়ে মরব। ’ পরে বিষয়টি ইউপি চেয়ারম্যান এবং স্থানীয় মেম্বারদের জানানো হলে তারা ঘটনাস্থলে আসেন এবং বিষয়টি পুলিশকে জানান।

নাটোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তারেক জুবায়ের জানান, বিষয়টি জানার পরে পুলিশ এসে ঘটনাস্থল ঘিরে রাখে। পরে র‌্যাব-৫-এর একটি টিম আসে। বর্তমানে ঘটনাস্থল পুলিশ ও র‌্যাব ঘিরে রেখেছে। র‌্যাব ফাইভের একটি টিম বোমাসদৃশ বস্তুটি নিষ্ক্রিয় করার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

ইউপি চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান কালু এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা অভিযোগ করেন, আগামী ২৫ জুন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাধাগ্রস্ত করতেই জামাতের একটি দল উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে আতঙ্ক সৃষ্টির উদ্দেশ্যে এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে।

পরে বেলা সাড়ে ১২টা নাগাদ র‌্যাবের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিটের সদস্যরা বোমাটি উদ্ধার করে একটি ইটভাটায় নিয়ে যায়। সেখানে মাটিতে গর্ত করে বোমাটির বিস্ফোরণ ঘটানো হয়।

এ বিষয়ে নাটোরের জেলা প্রশাসক শামিম আহমেদ পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা এবং র‌্যাব-৫ সিপিসি-২ নাটোর ক্যাম্প কমান্ডার কম্পানি অধিনায়ক, অতিঃ পুলিশ সুপার মো. ফরহাদ হোসেন বোমাটি উদ্ধারে সার্বক্ষণিক তদারক করেন।

জেলা প্রশাসক শামিম আহমেদ বলেন, ‘পুলিশ ও র‌্যাবের সমন্বিত কার্যক্রমের মাধ্যমে দ্রুততম সময়ে বোমাটি নিষ্ক্রিয় করা সম্ভব হয়েছে। পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা বলেন, এ ঘটনার সাথে কারা জড়িত রয়েছে, তাদের উদ্ধেশ্য কী ছিল তা খতিয়ে বের করাসহ প্রকৃত অপরাধীদের শানক্ত করে আইনের আওতায় আনার কাজ শুরু হয়েছে। এ কাজে র‌্যাব ও পুলিশ সমন্বিতভাবে কাজ করছে। আমরা আশা করছি দ্রুততম সময়ের মধ্যে ঘটনার সাথে জড়িতদের আইনের আওতায় আনা সম্ভব হবে। ‘


Leave a Reply

Your email address will not be published.