২৫ বছর পর সম্মেলন, মহিলা আ.লীগের সভাপতি-সম্পাদক ঘোষণা নিয়ে হট্টগোল

২৫ বছর পর সম্মেলন, মহিলা আ.লীগের সভাপতি-সম্পাদক ঘোষণা নিয়ে হট্টগোল

মানিকগঞ্জ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে মৃদুলা রহমানকে সভাপতি ও আনোয়ারা বেগমকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা নিয়ে তুমুল হট্টগোল হয়েছে।

শনিবার বিকালে সার্কিট হাউস মিলনায়তনে এ ঘটনা ঘটে। এসময় কমিটি বাতিল ও স্থগিতের দাবিতে সার্কিট হাউস অবরোধ করেন ক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা। গেটের বাইরে তারা বিক্ষোভ করেন ও বিভিন্ন স্লোগান দেন।

পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। অভিযোগ উঠেছে, নতুন কমিটির সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারা বেগম জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সদস্য নন।

এর আগে মানিকগঞ্জ সরকারি দেবেন্দ্র কলেজ মিলনায়তনে জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের ত্রি বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

সম্মেলন উদ্বোধন করেন কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা সাফিয়া খাতুন। জানা গেছে, কমিটি ঘোষণার পরপরই জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী এনায়েত হোসেন টিপু, সাংগঠনিক সম্পাদক তায়েবুর রহমান টিপু,

জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল বাসারসহ অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী সার্কিট হাউসে যান। এ সময় তারা কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কাছে নবগঠিত কমিটি বাতিলের দাবি জানান।

জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তায়েবুর রহমান টিপু জানান, যে দুজনকে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে, তারা কেউই শহরের বাসিন্দা নন। এ কমিটি ঘোষণার মাধ্যমে জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের কবর রচনা করা হয়েছে।

এ সময় মানিকগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য নাঈমুর রহমান দুর্জয় উপস্থিত ছিলেন। অগণতান্ত্রিকভাবে জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে তিনি কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে অবহিত করেন। দ্রুত কমিটি স্থগিতের দাবি জানান এই এমপি।

সদ্য বিদায়ী জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক লক্ষ্মী চ্যাটার্জি বলেন, কেন্দ্রীয় কমিটি কোনো নিয়ম-কানুন না মেনে এবং ৬০ জন ডেলিগেটের মতামত না নিয়ে অবৈধভাবে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করেছে।

তিনি জানান, কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম কারো সঙ্গে আলোচনা না করেই সভাপতি পদে মৃদুলা রহমান ও সাধারণ সম্পাদক পদে নিজের ভোট পাওয়া আনোয়ারা বেগমের নাম ঘোষণা করেন। এরপরই নেতাকর্মীরা নির্ধারিত ডেলিগেটদের ভোটে কমিটি গঠনের স্লোগান দেন।

কিন্তু কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ অবৈধভাবে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করে চলে যান। যাকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে, তিনি মহিলা আওয়ামী লীগের কোনো সদস্য নন। তবে তিনি সিংগাইর উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি। এ বিষয়ে জানতে চাইলে কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম সাংবাদিকদের বলেন,

কমিটি গঠনের বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করা হবে। তবে ডেলিগেটদের মতামত না নিয়ে কমিটি ঘোষণার বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি এড়িয়ে যান। উল্লেখ্য, মানিকগঞ্জ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সর্বশেষ কমিটি গঠিত হয়েছিল এক যুগ আগে ১৯৯৭ সালে।


Leave a Reply

Your email address will not be published.