আমি বঙ্গবন্ধুর সন্তান, যা করতে পারব সেটাই বলি : প্রধানমন্ত্রী

আমি বঙ্গবন্ধুর সন্তান, যা করতে পারব সেটাই বলি : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘আমি যেটা করতে পারব, সেটাই বলি। যেটা বলি, সেটাই করি।

শত বাধা-বিপত্তি সত্ত্বেও সেখান থেকে সরে আসি না। তার প্রমাণ আমি দিয়েছি।’ প্রধানমন্ত্রী আজ বুধবার বেলা ১১টায় শুরু হওয়া সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মেয়ে। আমি যেটা করতে পারব, সেটাই বলি। যেটা বলি, সেটাই করি, শত বাধা-

বিপত্তি সত্ত্বেও সেখান থেকে সরে আসি না। সেটার প্রমাণ আমি দিয়েছি। কারণ, এত বেশি ষড়যন্ত্র হয়েছে, তা সত্ত্বেও আমরা সফল হয়েছি।’ ‘ওই মুহূর্তে

উপদেষ্টা কমিটিতে যাঁরা ছিলেন, তাঁদের সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা—বিশেষত, ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী। যিনি জীবিত থাকলে, পদ্মা সেতু দেখে যেতে পারতেন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘পদ্মা সেতুর আগামী ২৫ জুন উদ্‌বোধন করা হবে। এ সেতু নির্মাণের জন্য ১৯৯৬ সালে জাপান সরকারকে আমি প্রথম আহ্বান জানাই। ওই সময় রূপসা সেতুর কথাও বলেছিলাম। কিন্তু, পদ্মায় সবচেয়ে বেশি স্রোত ছিল। তাই নদী শাসন করতে জাপান সরকারকে আহ্বান জানাই।’

‘কিন্তু, বিএনপি সরকার ক্ষমতা এসে কাজ এগিয়ে না নিয়ে বরং বন্ধ করার জন্য ষড়যন্ত্র করে’, যোগ করেন প্রধানমন্ত্রী। ‘এরপর আমরা ক্ষমতায় আসার পর এডিবির অর্থায়নে কাজ করার জন্য চুক্তি করি। কিন্তু. একজন লোক ব্যাংকের এমডি পদের জন্য বিশেষত ষড়যন্ত্র শুরু করে। একপর্যায়ে বিশ্বব্যাংক অর্থ দিতে অস্বীকার করে। দুদক তদন্ত করে দেখে—কোনো দুর্নীতি-অনিয়ম পাইনি। অথচ বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধি ওই সময় দেশে এসে বিশেষ ব্যক্তির সঙ্গে বৈঠক করে৷ পরে দুর্নীতির অভিযোগ এনে টাকা দিতে অস্বীকার করেন। তবে, আমরা দমে থাকিনি। বারবার ব্যয় বাড়াতে হয়েছে। কারণ, নকশা পরিবর্তন করতে হয়েছে। ভূমি অধিগ্রহণে আমরার অনেক টাকা ব্যয় করেছি। কারণ, ভূমি মালিকদের তিনগুণ টাকা প্রদান করেছি। এ ছাড়া ট্রেন চলাচলের জন্য কনক্রিটের পরিবর্তে স্টিল স্প্যান দিয়ে তৈরি করেছি। আল্লাহর কাছে শুকরিয়া, মানুষের সহযোগিতা পদ্মা সেতু নিজস্ব অর্থায়নে তৈরি করতে পেরেছি।’


Leave a Reply

Your email address will not be published.