দ্বিতীয় পদ্মা সেতু নির্মানে সুযোগ চায় জাপান, প্রতি উত্তরে যা বললেন প্রধানমন্ত্রী

দ্বিতীয় পদ্মা সেতু নির্মানে সুযোগ চায় জাপান, প্রতি উত্তরে যা বললেন প্রধানমন্ত্রী

প্রথম পদ্মা সেতুর নির্মান কাজ শেষ হতে না হতেই দ্বিতীয় পদ্মা সেতু নিয়ে হাজির জাপান। যদিও প্রথমটা চিনের সহযোগিতায় হয়েছে। তবে এবার সুযোগ চেয়েছেন জাপান।

ঢাকায় নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকো বলেছেন, দ্বিতীয় পদ্মা সেতু নির্মাণে বাংলাদেশ সরকারের চলমান প্রচেষ্টায় তার দেশ অংশ নিতে আগ্রহী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শিতা ও রাজনৈতিক বিচক্ষণতার কারণে

প্রথম পদ্মা সেতু নির্মাণের সময় তিনি এসব কথা বলেন।মঙ্গলবার রাজধানীর নিজ বাসভবনে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আমি নিশ্চিত যে দ্বিতীয় পদ্মা সেতু একদিন বাস্তবায়িত হবে। জাপান সরকার এবং জাইকা এই সরকারের নির্মাণ প্রচেষ্টায় অংশগ্রহণের সম্ভাবনা বিবেচনা করবে।

জাপানের রাষ্ট্রদূত বলেন, বর্তমানে জাপান সরকারের অবস্থান হচ্ছে আমরা বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক দ্বিতীয় পদ্মা সেতু নির্মাণে আমাদের সহযোগিতার প্রস্তাব করার সুযোগ নেব। তিনি বলেন, আমি নিশ্চিত যে এটি (পদ্মা সেতু) অত্যন্ত ফলপ্রসূ ও সফল হবে।

তাই দ্বিতীয় পদ্মা সেতু হবে বাস্তবে। ‘জাপানের রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলাদেশে মানসম্পন্ন অবকাঠামো নির্মাণে অংশগ্রহণের সম্ভাবনা থাকলে টোকিও ভালো প্রযুক্তি দিতে প্রস্তুত। জাপান এ পর্যন্ত বাংলাদেশে ১৩৪টি ছোট-বড় সেতু নির্মাণে সহায়তা করেছে।

এদিকে আজ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, পদ্মা সেতু নির্মাণে যে বিপুল অর্থ ব্যয় হয়েছে, তা দ্রুতই দ্বিতীয় পদ্মা সেতু নির্মাণ করা হবে। উত্থাপিত হয়. সারাদেশে বিভিন্ন সেতু নির্মাণ করে সংযোগ তৈরি করেছি।

পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর দ্বিতীয়টির ব্যবস্থা করা হচ্ছে। তারপরও আগে দেখতে হবে, কতটা দরকার? সেটা বিবেচনা করা হবে। আমি এই মুহূর্তে আরেকটি বড় কাজ শেষ করে এখনই আরেকটি শুরু করতে পারছি না।প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখন জায়গাটা খুব বড় নয়, বড় সেতুও নয়। তাই

ভবিষ্যতে যখন এটার প্রয়োজন হবে তখন আমি এটা নিয়ে ভাবব। আগেই বলেছি, কোন প্রয়োজন হলে রিটার্ন কি হবে তা দেখতে হবে। সেটা দেখেই প্রজেক্ট নেব। এটা আমাদের মাথায় আছে। এখন এত খরচ করেছি, টাকা আগে আসুক। তারপর দ্বিতীয়টা।

অবশেষে সারা বাংলাদেশের মানুষের সপ্নের পদ্মা সেতু কাজ সম্পূণ হয়েছে। গত বুধবার ২২ জুন বাংলাদেশে পদ্মা সেতুর কৃতিপক্ষের কাছে পদ্মা সেতুর সকল কার্যক্রম বুঝিয়ে দেওয়া হয়। জানা গেছে আগামী ২৫ জুন পদ্মা উদ্ভদনের মধ্য দিয়ে ২৬ থেকে যান চলাচল শুরু হবে।


Leave a Reply

Your email address will not be published.